ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই – ৫টি উপায়ে আয় করুন

ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই

জীবন-দশায় টাকা আয় করতে সবাই চায়। কিন্তু অদ্ভুতভাবে যদি কেউ বলে ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই তাহলে ব্যাপারটা কেমন দাঁড়ায়! অবশ্য এই বাক্যটিকে পাগলের কথা বলে ভাবা হতো ২০০৪ সাল পর্যন্ত। কিন্তু সময়ের সাথে মানুষের চিন্তা-ভাবনার ব্যাপক চেঞ্জ হয়েছে। আর করবেই না-বা কেন? কারণ বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশে হাজার-লক্ষ্য জনগণ অনলাইনে কাজ করে ঘরে বসে টাকা আয় করছে! এখন ২০২১-২০২২ সালে এসে সেই পূর্বের প্রশ্নটি অর্থাৎ “ ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই ” বাক্যটিকে শুনলে মোটেও ট্যারা চোখে দেখার কিছু নেই। কারণ যুগ পাল্টিয়েছে এবং সেই সাথে প্রযুক্তির ঘটেছে ব্যাপক পরিবর্তন। সময়ের সাথে ডিজিটালাইজেশনে কনভার্ট হচ্ছে পৃথিবীর সমস্ত দেশগুলো। এখন আমাদের অধিকাংশ তরুণদের মধ্যে একটা ট্রেন্ডিং হচ্ছে যে অনলাইনে আয় বলতে শুধু বোঝায় ফেজবুক থেকে টাকা আয় অথবা ইউটিউব থেকে টাকা আয় করাকে। কিন্তু ব্যাপারটা মোটেও এরকম নয়। আবার অনেকে টাকা আয় করতে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চায়। তাদের জন্যই মূলত আর্টিকেলটি। কাজ শিখার পাশাপাশি ছা্ত্রদের জন্য কার্যকারী কয়েকটি অ্যাপস এর কাজও কিন্তু একই সাথে শিখে রাখতে হবে। যেন ভবিষ্যৎ কাজে উপকৃত হওয়া যায়।

যাইহোক, মূল আলোচনায় আসা যাক, ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে আয় করার অনেক উপায় রয়েছে। আজকের আর্টিকেলে সমস্ত কিছু একসাথে বিস্তারিত আলোচনা করা সম্ভব নয়। ধারাবাহিকভাবে সব কিছু কভার করা হবে। আজকের আর্টিকেলে জাস্ট এমন কিছু উপায় উল্লেখ করবো, যেগুলো ইমপ্লিমেন্ট এর মাধ্যমে আপনিও ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারবেন। তাহলে চলুন জানা যাক সেই উপায়গুলো, যেগুলো আপনি আপনার জীবনে বাস্তবায়নের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হবেন এবং সেটি ঘরে বসেই। চলুন তাহলে ধীরে ধীরে জানা যাক সেই উপায়গুলো।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: এখানে উল্লেখিত ৫টি উপায়ের কোনো একটিও আপনি মোবাইল দিয়ে কাজ করতে পারবেন না। অর্থাৎ এখানে মোবাইল দিয়ে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার উপায় দেখানো হয় নি।

ঘরে বসে টাকা আয় করার উপায়

ঘরে বসে টাকা আয় করার উপায়

ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই এটা মুখে বলে কার্য-সম্পাদন না করে বসে থাকলেই হবে না। পাশাপাশি আমাদের কে প্রচুর পরিশ্রম করতে হবে। শুধু পরিশ্রম করলেই হবে না। থাকতে হবে ধৈর্য এবং মনোযোগ। এছাড়া দরকার একঘেয়ে কোনো একটি অনলাইন সেক্টরে লেগে থাকা। মোটামোটি এই গুণ গুলো যার মধ্যে থাকবে, আশা করা যায় সে অনলাইনে সফল হবে এবং দিন শেষে ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারবে। এখন কিভাবে ঘরে বসে টাকা আয় করবেন? আচ্ছা ঠিক আছে। অনলাইনে কাজ করার অনেকগুলো সেক্টর রয়েছে। প্রত্যেকটি সেক্টরে কাজ করার সুযোগ যাচ্ছে। এসব সেক্টরের যেকোনো একটি টপিকে যদি আপনি স্কিল ডেভোলাপ করতে পারেন, তাহলে আপনার পক্ষে ঘরে বসেই টাকা আয় করতে পারবেন। যেহেতু একটি আর্টিকেলের মাধ্যমে অনলাইনে ঘরে বসে টাকা আয় করার সমস্ত উপায় নিয়ে আলোচনা করা সম্ভব নয়, সেহেতু আজকের আর্টিকেলে জাস্ট ৫টি উপায় নিয়ে আলোচনা করবো, যেগুলোতে নিজেকে দক্ষ করতে পারলে অবশ্যই অনলাইনে কাজ করতে পারবেন এবং ঘরে বসেই সেই কাজটি করে টাকা আয় করতে পারেন। ঘরে বসে টাকা আয় করার সেই ৫টি উপায় হলো-

  • গ্রাফিক্স কাজ শিখে ঘরে বসে টাকা আয়
  • ভিডিও এডিটিং এর কাজ করে ঘরে বসে টাকা ইনকাম
  • এসইও এর কাজ শিখে ঘরে বসে টাকা আয়
  • ওয়েব-ডিজাইন শিখে টাকা আয়
  • সাইবার সিকিউরিটি সার্ভিস প্রোভাইড করে টাকা আয়

আজকের আর্টিকেলে মূলত এই পাঁচটি উপায় নিয়েই বিস্তরভাবে আলোচনা করবো, যেগুলোকে আয়ত্ত করে আপনিও ঘরে বসেই অনলাইনে টাকা আয় করতে পারেন। তাহলে চলুন বিলম্ব না করে ক্রমান্বয়ে স্টেপ বাই স্টেপ ঘরে বসে টাকা আয় করার উপায়গুলো সম্পর্কে সম্পূর্ণ ডিটেইলস জানা যাক।

গ্রাফিক্স কাজ শিখে ঘরে বসে টাকা আয় – Earn money by learn Graphic Design

গ্রাফিক্স কাজ শিখে ঘরে বসে টাকা আয়

বর্তমানে অন্যতম একটি ট্রেন্ডিং কাজ হলো গ্রাফিক্স কাজ Graphic Work শিখা। তরুণদের মাঝে এই সেক্টরের প্রতি আকর্ষণের দিকটি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তবে যারা অনলাইন  সেক্টরে Online sector সম্পূর্ণ নতুন বা নিউবি,তাদের কাছে গ্রাফিক্স টার্মটা নতুন হতে পারে। মূলত গ্রাফিক্স কাজ কী বা কাকে বলে? গ্রাফিক্স কাজ হলো মূলত এক প্রকার প্রযুক্তি নির্ভর শিল্প কাজ। যেখানে কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইসের মাধ্যমে আপনার চিন্তা-ধারণা, শৈল্পিক ভাব ইত্যাদিকে আপনার অর্জন করা দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে সেগুলোকে ইমেইজ/ছবি, টেক্স আকারে প্রকাশ করা। এখানে আপনাকে বেশিরভাগ সময় ছবির মাধ্যমে একটি ঘটনা বা কোনো কিছুর ভিজুয়্যাল কনসেপ্ট ( Visual Concept ) তৈরি করা।

গ্রাফিক্স কাজের সার্ভিস প্রোভাইড করতে চাইলে প্রথমে আপনাকে গ্রাফিক্স কাজ শিখতে হবে। গ্রাফিক্স কাজগুলো মূলত অনেকগুলো সফটওয়্যার দ্ধারা করা হয়। ভিন্ন জনের ভিন্ন সফটওয়্যার পছন্দ। যেমন কেউ এই ক্ষেত্রে ব্যবহার করে ফটোশপ ( Photoshop ), ইলাস্টেটর ( Illustrator ). এগুলো হলো অন্যতম। পিসির মাধ্যমে গ্রাফিক্স কাজ করার জন্য ব্যবহৃত কিছু গ্রাফিক্স সফটওয়্যার Graphic Software  এর তালিকা  দেওয়া হলো-

  • Adobe Photoshop
  • Adobe InDesign
  • CorelDraw Graphics Suite
  • Inkscape
  • Sketch
  • Adobe Illustrator
  • Affinity Designer
  • GIMP (GNU Image Manipulation Program)

উপরোক্ত সফটওয়্যারগুলোর মাধ্যমে সাধারণত কম্পিউটারে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর করার কাজ করা হয়। তবে এরকম আরো অনেকগুলো সফটওয়্যার রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমেও কম্পিউটরে গ্রাফিক্স কাজ Graphic Design in PC করা যায়। আপনারা প্রথমত উপরোক্ত বোল্ড করা দুটি সফটওয়্যার সম্পর্কে ইউটিউবিং করে সফটওয়্যার দুটির কাজ শিখতে পারেন। পাশাপাশি পিসিতে প্র্যাক্টিস করতে পারেন। যখন জাস্ট এই দুটি সফটওয়্যার এর কাজ শিখা শেষ হবে, তখন আপনার অভিজ্ঞতার ইমপ্লিমেন্ট করতে পারেন। ফাইবার – Fiverr, আপওয়ার্ক – Upwork সহ আরো যে মার্কেপ্লেসগুলো আছে, সেগুলোতে কাজ করতে পারেন। সেখানে সাধারণত ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভিং ( Background Removing ), লগো ( Logo ), অ্যাডভার্টিসমেন্ট ( Advertisement ), বুক ( Book design ), ওয়েবসাইট কভার, ফেবিকন/আইকন ( Website Cover. Favicon/icon ), ম্যাগাজিন Mazagine ), ফটো/ছবি ইডিট করা ( Photo edit ) সহ আরো অনেক কাজ রয়েছে। সেগুলোর কাজ আপনি ঘরে বসেই করতে পারেন এবং ঘরে বসে কাজ করে বিনিময়ে টাকা আয় করতে পারেন। মূলত গ্রাফিক্স কাজ শিখে ঘরে বসেই ক্লাইন্টের কাজ করে এভাবে টাকা আয় করতে পারেন।

ভিডিও এডিটিং করে ঘরে বসে টাকা ইনকাম – Earn money by Video Editing

ভিডিও এডিটিং করে ঘরে বসে টাকা ইনকাম

ভিডিও এডিটিং করা অনেকের নিকট এটি একটি নেশা আবার অনেকের নিকট এটি একটি পেশায় রূপান্তর হয়েছে। তবে নেশাটা যদি পেশায় তৈরি হয়ে ঘরে বসে টাকা আয় করার একটা সুয়োগ তৈরি করে দেয়, তবে ব্যাপারটা বেশ ইন্টারেস্টিং হয়। বর্তমানে অনলাইন জগতে অভিজ্ঞ ভিডিও এডিটিং এ দক্ষ জনবলের খুবই অভাব। এই সেক্টরে যদি আপনি বেশ কিছুদিন কাজ শিখে কয়েকটা ডেমো প্রজেক্টে কাজ করে মার্কেটপ্লেসে আসেন, তাহলে অনলাইনে প্রচুর কাজ পাবেন। যেগুলো করার মাধ্যমে ভালো অ্যামাউন্ট টাকা ইনকাম করা সম্ভব। এখন ভিডিও ইডিটিং video editing হতে পারে ভিন্ন ভিন্ন। যেমন- কোনো সিনেমা হিট করার জন্য প্রয়োজন ভিডিও এডিটিং, নাটক করতেও ভিডিও এডিটিং এর প্রয়োজন। মোট কথা অনলাইন ভার্চয়াল জগতে ভিডিও আকৃতির সমস্ত কিছুতেই ভিডিও এডিটিং এর প্রয়োজন হয়। যে বিধায় আপনাকে ভিডিও এডিটিং শিখতে হবে। বেশ কয়েকটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার রয়েছে, যেগুলোর মাধ্যমে এডিটররা এডিট করে থাকে। যেমন ভিডিও এডিটিং এর জন্য সবচেয় বেস্ট এবং ভালো জনপ্রিয় সফটওয়্যার হলো অ্যাডোভি প্রিমিয়াম প্রো Adobe Premiere Pro। এছাড়াও রয়েছে ফটোশপের অ্যাডোভি আপ্টার ইফেক্ট Adobe After Effect সহ আরো অনেক প্রিমিয়াম জনপ্রিয় ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার Video editing software.। আপনাদের জানার জ্ঞাতে এখানে বেশ কিছু জনপ্রিয় ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারের নাম উল্লেখ করা হলো-

  • CyberLink PowerDirector 365
  • Adobe Premiere Elements
  • Pinnacle Studio
  • Final Cut Pro X
  • Adobe Premiere
  • Corel VideoStudio
  • Filmora.
  • Vimeo Create

এখানে বেশ কিছু ভিডিও এডিটিং এর জন্য অ্যাপস এর video editing apps name উল্লেখ করা হয়েছে। এগুলোর প্রতিটি জন্য আপনাকে দক্ষ হতে হবে না। জাস্ট এগুলোর মধ্যে যেকোনো একটি তে অভিজ্ঞ হলেই আপনি ভিডিও এডিটিং এর সার্ভিস প্রোভাইড video editing service provide করতে পারেন। এখানে সবগুলো সফটওয়্যারের নাম তুলে ধরার কারণ হলো আপনার পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো একটি অ্যাপসকে চয়েজ করে, সে সফটওয়্যারে অভিজ্ঞ হওয়া। কিভাবে সেই সফটওয়্যারের কাজগুলো শিখবেন? উত্তর খুবই সোজা।  অর্থাৎ আপনি শুধু এই ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার এর নাম লিখে ইউটিউবে বা ইন্টারনেটে সার্চ দিবেন, সকল তথ্য ভিডিও ও লিখিত আকারে পেয়ে যাবেন। এরপর যেকোনো একটি চ্যানেলের প্লে লিস্টগুলোতে চেক করতে হবে। প্লে লিস্ট থেকে ঐ ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার video editing software এর উপর বেজ করে তৈরি হওয়া সমস্ত ভিডিওুগুলো দেখতে হবে। পাশাপাশি ভিডিওগুলো দেখে প্র্যাক্টিসও করতে হবে। এভাবে কাজ শিখা ও প্র্যাক্টিজ করতে থাকলে, একটা নির্দিষ্ট সময় পর আপনি সেই সফটওয়্যারের উপর ভিডিও এডিটিং এ বেশ ভালো দক্ষ হয়ে উঠবেন। আর তখনই আপনি অনলাইনে থাকা যেকোনো একটি প্লাটফর্মে একাউন্ট করে ক্লাইন্টের কাজ করে দিবেন। হোক সে দেশী বা বহিরের ক্লাইন্ট। আপনি আপনার সেরা কাজটা করে দিবেন এবং বিনিময়ে ঘরে বসেই টাকা আয় করবেন। এই ক্ষেত্রে বর্তমানে বাংলাদেশে যেহেতু ইউটিউবিং এর একট ট্রেন্ড চলতেছে, সেহেতু লোকালি বাংলাদেশেীদেরও কাজ করতে পারেন। বলে রাখা ভালো যে, ভিডিও এডিটিং কাজটি ঘরে বসেই করা যায় আর বিনিময়ে টাকা আয় করা যায়। সুতরাং ভিডিও এডিটিং এ দক্ষ হয়ে ঘরে বসেই টাকা আয় করুন।

এসইও এর কাজ শিখে ঘরে বসে টাকা আয় – Learn SEO for earn money

এসইও এর কাজ শিখে ঘরে বসে টাকা আয়

এসইও SEO করে অনলাইনে টাকা আয় করা টপিকটা যদিও দিন দিন মার্কেটপ্লেসগুলোত বেশ কঠিনতম হচ্ছে। কারণ কম্পিটিটর সংখ্যা অনেক পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে কোনো কিছুতে হাল ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়। আর এসইও এর ক্ষেত্রে তো মোটেও হাল ছাড়া উচিত নয়। কেননা অন্তত আপনি আপনার নিজের ওয়েবসাইট, গিগ, পোস্ট/আর্টকেল ইত্যাদি গুগলে বা কোনো একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে রেংক করাতে এসইও এর ভূমিকা অপরিসীম। এছাড়াও রয়েছে ইউটিউবে ভিডিও রেংক করানো এসইও করে।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে এসইও SEO কি বা কাকে বলে? এসইও SEO এর অর্থ হলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন ( Search Engine Optimization ). এর কাজ হলো মূলত ইন্টারনেটে আপনি আপনার যেকোনো ধরনের কন্টেন্টকে টপে রেংক করানো। এসইও করে যদি ঘরে বসেই আর্ন করতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনাকে এসইও সম্পর্কে অন্তত মিড লেভেলের একটি ধারণা রাখতে হবে। এখন আসা যাক এইইও জিনিসটা কিভাবে ইম্পিলিমেন্ট করা হয়? মূলত দুইভাবে এসইও করা হয়।এগুলো হলো-

  • অন-পেজ এসইও – On Page SEO
  • অব-পেজ এসইও – Off Page SEO

মূলত এই দুই স্টেপেই এসইও এর সমস্ত কাজগুলো করতে হয়। এখানে আবার অন পেজ এসইও এবং অব পেজ এসইও এর মধ্যে অনেকগুলো টপিক রয়েছে। যগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত পড়ে আসতে পারেন। এগুলো শিখে আপনি মার্কেট প্লেসগুলোতে গিগ খুলে সার্ভিস প্রোভাইড করতে পারেন। এতে করে আপনি ঘরে বসেই টাকা আয় করতে পারেন। অনলাইনে এসইও রিলেটেড টিউটেরিয়াল অনেক রয়েছে। যেগুলো থেকে আপনি খুব সহজেই ভালোভাবে সহজে এসইও শিখে ফেলতে পারেন। আমাদের সাইটে ব্লগ পোস্টের এসই নিয়ে অনেকগুলো আর্টিকেল রয়েছে। যেগুলো দ্ধারা উপকৃত হতে পারেন। প্রথমে ইউটিউবে থাকা সমস্ত এসইও রিলেটেড ভিডিও গুলো দেখে প্র্যাক্টিস করুন এবং ডেমো কয়েকটি প্রজেক্টে কাজ করুন। এতে করে আপনি এসইও সম্পর্কে বেশ ভালো একটি ধারণা পেয়ে যাবেন। সুতরাং প্রথমে এসইও এর কাজটি শিখুন তারপর ধারাবাহিকতায় সেই কাজটির উপর ডিপেন্ড করে ক্লাইন্টকে সার্ভিস দিয়ে ঘরে বসেই অর্থ উপার্জন করুন।

ওয়েব ডিজাইন শিখে ঘরে বসে টাকা আয় – Learn Web Design to earn money

ওয়েব ডিজাইন শিখে ঘরে বসে টাকা আয়

ওয়েব ডিজাইন এর ভেল্যু দিন দিন বাড়ছেই। খুশির খবর এই যে, দিন দিন এর ভেল্যু বাড়বেই। কারণ প্রতিনিয়ত আমরা অনলাইনে নির্ভর হচ্ছি। সুতরাং লং টাইম ধরে ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাইলে ওয়েব ডিজাইন শিখা হলো অন্যতম একটি সিদ্ধান্ত। যদিও এই কাজটি কিছুটা হলেও বিরক্তকর মনে হয় প্রাথমিক অবস্থায়, কিন্তু ধীরে ধীরে তা যখন আয়ত্তে চলে আসে, তখন এটা আমাদের নিকট বেশ মজাদার একটি টপিক হয়ে উঠে। বর্তমানে মার্কেপ্লেস সহ লোকালি অনেক অভাব রয়েছে একজন অভিজ্ঞ ওয়েব ডিজাইনারের। এর কারণ হচ্ছে আমরা কিছুটা শিখে মার্কেপ্লেসগুলোতে কাজ করার জন্য নেমে পড়ি এবং ফলাফলসরূপ যখন কাজ পাই, তখন ক্লাইন্টদের সন্তুষ্ট করতে পারি না। যে কারণে বর্তমানে ক্লাইন্টরা নতুন মার্কেটারদের কাজ দিতে উৎসাহিত হোন না। তারা ভালো রেটিং দেখে অভিজ্ঞদের কাজ দিতে চায়। খুব কম মানুষই আছে যারা ব্যয়বহুল একটি প্রজেক্ট অনভিজ্ঞ একজনকে দিতে চায়। ঠিক একইভাবে প্রতিটি ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতার একটি বিশেষ মূল্য রয়েছে। তেমনি ওয়েব ডিজাইনের ক্ষেত্রেও।

এখন প্রশ্ন আসতে পারে কিভাবে ওয়েব ডিজাইন শিখে প্র্যাক্টিস করবেন? খুবই সোজা! ইউটিউবে প্রচুর ভিডিও রয়েছে ওয়েব ডিজাইন নিয়ে। সেখান থেকে ওয়েব ডিজাইন শিখতে পারেন। অথবা অনেক ভালো ভালো দেশীয় প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যেগুলোর থেকে কোর্স করে আপনি ওয়েব ডিজাইন শিখতে পারেন। আপনি ওয়ার্ডপ্রেস WordPress হতে শুরু করে HTML, CSS, JavaScript, Php, Python সহ আরো অনেগুলো ওয়েব সাইট ডিজাইনের ক্ষেত্র রয়েছে। যেগুলোর মাধ্যমে আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইন Website Design করতে পারেন। মূলত এভাবেই ধৈর্য ও মনোযোগ সহকারে ওয়েব ডিজাইন শিখুন এবং নিয়মিত প্র্যাক্টিস করুন। এতে করে আপনি খুব সহজেই কাজ শিখে অনলাইনে ঘরে বসেই টাকা আয় করতে পারবেন।

সাইভার সিকিউরিটি সার্ভিস প্রোভাইড করে টাকা আয় – Earn money by cyber security Service Provide

সাইভার সিকিউরিটি সার্ভিস প্রোভাইড করে টাকা আয়

সম্মানের এবং স্কিলফুল একটি প্রোপেশান হলো সাইভার সিকিউরিটি সার্ভিস এবং এর মাধ্যমেও আপনি অনলাইনে ঘরে বসেই টাকা আয় করতে পারেন। সাইবার সিকিউরিটিতে বর্তমানে বিশ্বের উন্নত দেশগুলো দক্ষতার দিক দিয়ে বেশ অনেক এগিয়ে। তবে স্রোতের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশও পিছিয়ে নেই। ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশের সাইভার টিমগুলোও এগিয়ে যাচ্ছে। তবে এখানে দক্ষ ও অভিজ্ঞ লোকবলের খুব প্রয়োজন। এখানে কাজ করতে হলে আপনাকে প্রোগ্রামিং সম্পর্কে জ্ঞান programming knowledge থাকা দরকার। বর্তমানে যদি আমাদের বাংলাদেশে কেউ প্রোগ্রামিং এ দক্ষ হয়, তাহলে বাংলাদেশ সরকার তাকে  সাইবার সিকোরিটির জন্য ইমাডেটলি জব দিয়ে দিচ্ছে। এর কারণ হচ্ছে বাংলাদেশে সাইবার সিকিউরিটি নিয়ে তেমন একটা আগ্রহ পূর্বে দেখা যায় নি। তবে কোভিড-১৯ এর পর থেকে বাংলাদেশের তরুণদের মধ্যে বেশ একটি প্রতিযোগিতার মতোই অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা যাচ্ছে। এমতোবস্থায় আপনি কী করতে পারেন?

আপনাকে প্রথমে ভালো কনফিগারেশনের একটি পিসি best configuration computer নিতে হবে। এরপর ইউটিউবে সার্চ দিয়ে প্রোগ্রামিং এর বেসিক টার্মগুলো শিখে ফেলতে হবে। ধারাবাহিকভাবে টার্মগুলো শিখা এবং প্র্যাক্টিস করার পর এবার সময় এসেছে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ শিখার Learn Programming Language. এখানে আপনি যদি সচ্চল হোন, তাহলে নামকরা কোনো একটি প্রতিষ্ঠান থেকে কোর্স করতে পারেন প্রোগ্রামিং এর উপর বেস করে। তাহলে দেখা গেল আপনি একজন ইনস্ট্রাকটর পেয়ে গেলেন পাশাপাশি সঠিক গাইড লাইনও ফেলেন। এইভাবে ধারাবাহিকভাবে কাজ করে গেলে এবং ডেমো কয়েকটি প্রজেক্ট তৈরি করে প্র্যাক্টিস করলে আসা করি সাইবার সিকিউরিটিতে আপনি বেশ দক্ষ হয়ে উঠবেন। প্রাথমিক অবস্থায় আপনি Python এবং JavaScript শিখতে পারেন। এরপর বাকি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ গুলো শিখবেন। কয়েকটি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ এর নাম Some programming Language name উল্লেখ করা হলো-

  • JavaScript
  • Pytho
  • Java
  • C/CPP
  • PHP
  • Swift
  • C# (C- Sharp)
  • Ruby

এরকম আরো অনেক প্রকার প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ রয়েছে। যেগুলো শিখে নিজের মধ্যে আত্তস্ত করার মাধ্যমে আপনি ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারেন। মূলত এই প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ গুলোই হলো সাইভার সিকিউরিটির জন্য বেস্ট ভাষা। তাই  আজ থেকে এই আর্টিকেলটি পড়ার পর থেকেই প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ গুলো শিখা শুরু করুন। নিজের মধ্যে ভাষাগুলোকে আয়ত্ত করে প্র্যাক্টিসের মাধ্যমে ইম্পিলিমেন্ট করুন। আশা করি আপনিও সাইবার সিকিউরিটির সার্ভিস প্রোভাইড করে ঘরে বসেই টাকা আয় করতে পারেন।

ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই আর্টিকেলে শেষ কথা

উপরোক্ত বিস্তর আলোচনা থেকে বোঝা গেল যে সত্যিকার অর্থেই ঘরে বসে টাকা আয় করা সম্ভব। আর তা হলো অনলাইনে কাজের মাধ্যমে। উপরে যে ৫টি কাজের নাম বা টপিকের নাম উল্লেখ করলাম, সেগুলো থেকে যেকোনো একটিতে দক্ষ হয়ে যান। এখানে উল্লেখিত প্রতিটি টপিক বেশ প্রোটেনশিয়াল এবং শাইনি। তাই ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাইলে উপরোক্ত টপিকগুলোর যেকোনো একটি ফলো করুন। এরপর গাইড অনুযায়ী কাজ শিখুন  এবং কয়েকটি ডেমু প্রজেক্টে প্র্যাক্টিস করুন। এভাবে কয়েকবার মনোযেগ সহকারে কাজ করুণ। আশা করি দৃঢ় ভাবে কাজ শিখলে এবং কাজ করলে সফল হবেন। তবে এই ক্ষেত্রে যে জিনিসটি লক্ষণীয় তা হলো কোনো ভাবেই একটি কাজ শিখার সময় অন্য কাজগুলোতে হাত বাড়ানো। এসব সম্পূর্ণভাবে বন্ধ রাখতে হবে। কেননা তাহলে আপনি কোনো একটি নির্দিষ্ট কাজ শিখতে পারবেন না। এই  জিনিসটি উল্লেখ করার মেইন কারণ হচ্ছে নতুন অবস্থায় অনেকেই এই প্রধান ভুলটি করে থাকে। তাই যেকোনো একটি টপিক/সেকশন কে টার্গেট করে ধৈর্য ও মনোযোগ সহকারে কাজে লেগে থাকুন, আপনি সফল হবেন এবং ঘরে বসেই টাকা আয় করতে পারবেন।

ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই সম্পর্কে আরো জানতে

Leave a Comment