বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চেয়ে বিশেষ করে বিকাশ গ্রাহকদের মধ্যেই এক ধরনের উত্তেজনা বিরাজ করে। বিকাশ গ্রাহকরা নানাবিধ কারণে তাদের চলমান একাউন্টটি বন্ধ করতে চায়। যদিও বর্তমানে বাংলাদেশে চলমান মোবাইল ব্যাংকিংগুলোর মধ্যে বিকাশের গ্রাহক সংখ্যাই বেশি এবং দৈনিকের লেনদেনের পরিমাণও হিউজ। কিন্তু তারপরও নানা রকম কারণে অনেকে তার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করে দিতে চায়। কারণগুলো মধ্যে কয়েকটি হলো-

  • একই পরিবারে একাধিক বিকাশ একাউন্ট রাখতে না চাওয়া
  • সিম হারিয়ে যাওয়া
  • অথবা নতুন মোবাইল ব্যাংকিং এ মুভ করা সহ ইত্যাদি কারণে

এখানে শুধু এই কয়েকটি কারণ উল্লেখ করেছি, কিন্তু বাস্তবিক অর্থে তা আরো অনেক কারণে হতে পারে। আবার এমন অনেকে আছে, যারা তাদের পুরাতন বিকাশ একাউন্টটি ডিলিট করে নুতন একটি সিমে নতুন বিকাশ একাউন্ট করতে চায়। এরকম আরো অনেকগুলো কারণ; রয়েছে। সার্বিকভাবে বিবেচনা করলে বিকাশ গ্রাহক তাঁর একাউন্টটি কোন নির্দিষ্ট কারণে ডিলেট বা বন্ধ করতে চায়। এখন সেই বিকাশ গ্রাহক তাঁর বিকাশ একাউন্টটি কিভাবে বন্ধ বা ডিলেট করতে পারে? কোন উপায়ে সে তাঁর একাউন্টটি বন্ধ করবে? একাউন্টটি বন্ধ করতে কোনো রকম জটিলতায় পড়তে হবে কি-না? এরকম নানা ধরণের প্রশ্ন ও উত্তর নিয়েই আজকের আমাদের এই আর্টিকেলটি। দয়া করে মনোযোগ সহকারে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন, আশা করি কিভাবে আপনার বিকাশ একাউন্টটি bKash account বন্ধ করবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পেয়ে যাবেন। তাহলে বিলম্ব না করে চলুন জানা যাক বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম সম্পর্কে।

( বিকাশের আজকের অফার দেখে নিন একই সাথে বিকাশ রিওয়ার্ডস সম্পর্কিত তথ্য সহ বিকাশ একাউন্টের সকল সুবিধা এবং আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন ভুলে গেলে করণীয় গুলো জেনে নিন )

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম জানুন – closing a bKash account

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম জানুন

অনেকে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম এবং বিকাশ একাউন্টের মালিকানা পরিবর্তন নিয়ে একজোট করে ফেলে। বিষয়টা কি আদোও তাই? প্রায় কাছাকাছি হলেও শব্দগত ভাবে চিন্তা করলেও আমরা এর ভ্যারয়ান্ট দেখতে পাই। যাইহোক, মূল আলোচনায় আসা যাক। কিভাবে আমরা আমাদের নিকট বা আমাদের নামে থাকা বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করতে পারি। এখন অনেকে মনে করে হয়তো আমরা 16247 বিকাশ হেল্প সেন্টারে ফোন করে আমাদের বিকাশ একাউন্টটি অপ বা বন্ধ করে দিতে পারবো। কিন্তু মোটেও এই ধারণাটি সঠিক নয়। তাহলে চলুন কিভাবে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে পারি তা জানা যাক-

  • বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে 16247 নাম্বারে ফোন দিলে একাউন্ট বন্ধ হবে না। এর জন্য আমাদেরকে সরাসরি নিকটস্থ বিকাশ কাস্টমার সেন্টার প্রতিনিধিদের নিকট যেতে হবে।
  • বিকাশ কাস্টমার সেন্টারে যাওয়ার আগে অবশ্যই আপনাকে কিছু ডকুমেন্টস সাথে করে নিয়ে যেতে হবে।
  • বিশেষ ডকুমেন্টস এর মধ্যে রয়েছে আপনার এনআইডি কার্ড (NID Card), বিকাশ একাউন্ট থাকা সেই সিমটি, যার নামে বিকাশ করা সেই প্রত্যক্ষভাবে থাকতে হবে। মূলত এগুলো হলেই এনাফ।
  • এখন আপনাকে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে যেতে হবে।
  • এবার আপনি বিকাশ কাস্টমার সেন্টারে অবস্থিত প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করুন।
  • কাস্টমার প্রতিনিধিরা আপনাকে বেশ কিছু প্রশ্ন করবে। উত্তরগুলো সঠিকভাবে দিতে পারলে তাঁরা আপনার বিকাশ একাউন্টটি ডিলিট বা বন্ধ করে দিবে।
  • এখন অনেকে বলতে পারে কি ধরনের প্রশ্ন হবে বা করতে পারে? সাধারণত তাঁরা আপনাকে তেমন কোনো কঠিন বা বিভ্রান্তমূলক প্রশ্ন করবে না। প্রতিনিধিরা জানতে চাইবে আপনি কেন আপনার বিকাশ একাউন্টটি আর ব্যবহার করতে চাচ্ছেন না অথবা কেন বন্ধ করে দিতে চাচ্ছেন। আর আপনি যে সত্যিকার বিকাশ একাউন্টের মালিক তা প্রমাণ করতে পারলে আপনাকে ওরা আর কোনো রকম অতিরিক্ত প্রশ্ন করবে না। সার্বিকভাবে আপনি কেন বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করতে চাচ্ছেন তার একটি ভালো উত্তর আগে থেকেই তৈরি করে রাখবেন। হতে পারে আপনার সিমটি হারিয়ে গেছে অথবা হতে পারে আপনি নতুন কোনো একটি মোবাইল ব্যাংকিং এ মুভ হতে চাচ্ছেন। এভাবে ভালো ও নির্ভরযোগ্য একটি উত্তর দিবেন। এরপর ওরা আপনাকে জাস্টিপাই করবে। এই বিকাশ একাউন্টের মালিক সত্যিকার অর্থে আপনি কি-না।যদি আপনি না হোন তাহলে তাঁরা কোনোভাবেই বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করে দিবে না। তাই যাওয়া সময় আপনার এনআইডি কার্ডটি নিতে যেতে পারেন। আর আপনি এক কপি ছবিও নিয়ে যেতে পারেন। এভাবে আপনি তাদের কনভিন্স করতে পারেন আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করতে।
  • যদি সব তথ্য ঠিক থাকে, তাহলে বিকাশ কাস্টমার সেন্টারের প্রতিনিধিরা সাথে সাথেই আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করে দিবে।
  • এখন যেহেতু আপনার  এনআইডি দিয়ে একটিও বিকাশ একাউন্ট নেই, সুতরাং এখন নুতন সিমে বা নুতন করে পুনরায় আরেকটি নতুন বিকাশ একাউন্ট ওপেন বা খোলতে পারেন।
  • ব্যাস, এখন থেকে আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ হয়ে গেল।
Read More  রকেট একাউন্ট চেক এবং একাউন্ট দেখার ও খোলার নিয়ম

মূলত এভাবেই আপনি আপনার বিকাশ একাউন্টটিকে Your bKash account মূহর্তেই বন্ধ করে দিতে পারেন। তবে অবশ্যই উপরোক্ত জিনিসগুলো/পয়েন্টগুলো মাথায় রেখে কাজ করতে হবে। তাই আশা করি, আপনি এখন নিজেই প্রয়োজন অনুযায়ী আপনার বিকাশ একাউ্ন্টটি বন্ধ করে দিতে পারবেন।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে নাম পরিবর্তন

আলোচনার শুরুতে বলেছিলাম যে, অনেকে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ close your bKash account করা এবং বিকাশ একাউন্টের নাম পরিরবর্তন করা নিয়ে একজোট করে এলোমেলে করে ফেলে। তাই সব গ্রাহকদের সুবিধার্থে আজকের আর্টিকেলে একটি পার্ট যোগ করে দিলাম। যদিও আমাদের সাইটে আলাদাভাবে একটি পোস্ট আছে যে কিভাবে আপনি বিকাশ একান্টের মালিকানা পরিবর্তন করবেন তা নিয়ে। এখন অনেকে রয়েছে, যারা তাদের মালিকানা পরিবর্তন করার জন্য স্থায়ীভাবে বিকাশ একাউন্টটি ডিলিট করে দিতে চায়। তাই আপনি দুটি আর্টিকেল ভালোভাবে পড়ে তারপর সিদ্ধান্ত নিন। এতে করে প্রত্যাশিত ফলাফল পাওয়া সম্ভব।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম নিয়ে প্রশ্ন-উত্তর

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম নিয়ে প্রশ্ন-উত্তর

আমাদের মাঝে নানা রকম প্রশ্ন থাকে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করা নিয়ে। আমরা বিভিন্ন ফোরামগুলোতে সাধারণত উক্ত প্রশ্নগুলো করে থাকি। তাই এখানে গুটিকয়েক প্রশ্ন উল্লেখ করে তাঁর উত্তরগুলো দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার পরেও কি ঐ বিকাশ নাম্বারের তথ্য বের করা সম্ভব?

উত্তর হলো হ্যাঁ। কেননা বিকাশ কর্তৃপক্ষের নিকট সমস্ত ডাটাই জমা থাকে। তাই যদিও আপনি আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করে দিয়েছেন, কিন্তু তারপরও ঐ বিকাশ নাম্বারের সমস্ত তথ্য বিকাশ কর্তৃপক্ষের নিকট জমা থাকবে।

এক আইডি দিয়ে আরেকটি বিকাশ একাউন্ট হালনাগাদ করতে চাইলে আগেরটি কি বন্ধ হয়ে যাবে?

জ্বি, বিকাশ কর্তৃপক্ষ এই ক্ষেত্রে তাদের অফিশিয়াল সাইটে ঘোষণা দিয়েছে যে, যদি কারো এনআইডি  (NID) কার্ড দিয়ে একের অধিক বিকাশ একাউন্ট ওপেন করে রাখে, তাহলে দুটি একাউন্টের মধ্যে যে কোনো একটি একাউন্ট বন্ধ হয়ে যাবে।

Read More  বিকাশ রেফার অফার ২০২১ | রেফার করলেই ১০০ টাকা
একটি NID দিয়ে দুটির বিকাশ একাউন্টের একটি বন্ধ হয়ে গেছে, একটা চালু আছে, বন্ধ হওয়া বিকাশ কিভাবে ফিরে পাবো?

যেহেতু বিকাশ কর্তৃপক্ষ অফিশিয়াল ভাবে জানিয়ে দিয়েছে যে, একটি এনআইডি দ্ধারা শুধুমাত্র একটি বিকাশ একাউন্টই থাকবে, সুতরাং আরেকটি একাউন্ট বন্ধ করে দেওয়াই স্বাভাবিক। এখন আপনি যদি পুনরায় আগের একাউন্টটি ফিরে পেতে চান, তাহলে বর্তমানের একাউন্টটি বন্ধ করে দিতে হবে অথবা অন্য একটি এনআইডি ব্যবহার করে পুনরায় নতুন একটি বিকাশ বিকাশ একাউন্ট খুলতে হবে।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম সম্পর্কিত শেষ কথা

যেহেতু আজকের আর্টিকলেটি ছিল বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করা সম্পর্কিত, তাই এখানে অনেকগুলো আলোচনা মূল আলোচনার বাহিরে ছিল যা মূলত বোঝানোর স্বার্থেই উল্লেখ করা হয়েছে। আশা করি পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়েছেন। এখন অবশ্যই আপনার মনে আর কোনো রকম দ্ধিধা নেই যে বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করা নিয়ে। তাই আপনি উপরোক্ত নিয়ম অনুসরণ করে আপনার প্রয়োজন এবং সময় গণ্য করে যেকোনো মূহর্তেই আপনার বিকাশ একাউন্টটি বন্ধ করতে পারেন। সুতরাং আশা করি আজকের আর্টিকেলটি দ্ধারা পাঠকগণ বেশ ভালোভাবে উপকৃত হয়েছেন।

বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম সম্পর্কে আরো জানতে

Leave a Comment