বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম – BD money earning app

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম! ব্যাপারটা অবাক হওয়ার মতো কিন্তু বাস্তবিক অর্থে তা সম্ভব। কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবে বাংলাদেশের অধিকাংশের আর্থিক অবস্থার বেহাল/করুণ অবস্থা। ঠিক এই মূহর্তে ইন্টারনেটে অহোরোহ মানুষ অনলাইনে মোবাইল apps দিয়ে টাকা ইনকাম এর সোর্স খুঁজছে। যার কারণে আজকে এমন কিছু বাংলাদেশি apps নিয়ে আলোচনা করবো , যেগুলো দ্ধারা যেকেউ তার হাতে থাকা স্মার্টফোন দিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবে।

টাকা আয়ের অনেক apps রয়েছে কিন্তু নির্ভরযোগ্য এবং নিরাপদ অ্যাপসের বড়ই সংকট অনলাইন জগতে। অনেকে নানা রকম প্ররোচনার শিকার হয়েছে আনলাইন জগতে। মূলত এই বিষয়টা তখনই ঘটে, যখন পর্যাপ্ত নলেজ বা জ্ঞান না নিয়ে এরকম কিছু থার্ড পার্টি টাইপ অ্যাপসগুলোতে নানা রকম ইনভেস্ট হতে শুরু করে সময়-শ্রম সব কিছুই বিলিয়ে দেয়, তখন দিন শেষে এরকম দূর্ঘটনা ঘটে থাকে। মনে রাখতে হবে, সাইবার জগতে অপরাদ দিন দিন ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই এখানে আপনি  বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম এর আলোচনা শুনে প্রথমে যাচাই-বাচাই করুণ। অন্যথায় কোনো অবস্থাতেই Banglatip এর জন্য দায়ী থাকবে না। ( ঘরে বসে টাকা আয় করুন )

তবে তাও ঠিক যে, দিন দিন অনলাইনের ইনকামের পথ ক্রমশ প্রশস্ত হচ্ছে। ধীরে ধীরে তা আরো সহজতর হচ্ছে। এমন অবস্থায় বাংলাদেশী টেক-জায়েন্ট কোম্পানিগুলোও বসে নেই। বাংলাদেশেী ১৯-২২ কোটি মানুষকে কেন্দ্র করে তারাও মোবাইল app এর মাধ্যমে ইনকাম করার বিষয়টিকে আরো সহজতর করার চেষ্টা করছে। বাংলাদেশে বেশ কিছু অ্যাপস রয়েছে। যেগুলো দ্ধারা আপনি মাসে ১০-২৫/৩০ হাজার টাকা অবধি ইনকাম করতে সক্ষম। আর মজার ব্যাপার হচ্ছে, যেহেতু অ্যাপসগুলো হলো বাংলাদেশি এবং তাই আপনার কষ্টে অর্জিত এই ইনকামের টাকাগুলো আপনি যেকোনো মোবাইল ব্যাংকিং দ্ধারা উঠাতে পারেন। যেমন – বিকাশ, রকেট, নগদ ইত্যাদি মোবাইল ব্যাংকিংগুলো দ্ধারা। তারা পেমেন্ট গেটওয়েগুলোকে সহজতর করে দিয়েছে। ( শিক্ষার্থীদের জন্য কার্যকারী অ্যাপস )

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম করার আজকের আর্টিকেলে আমরা জানতে চেষ্টা করবো কোন কোন বাংলাদেশি apps দিয়ে টাকা ইনকাম করা যায়, অ্যাপস দিয়ে টাকা ইনকাম করার জন্য আপনাকে কি কি বিষয়গুলোর প্রতি ইফোর্ট দিতে হবে, কি কি কাজ করতে হবে সহ ইত্যাদি বিষয়ে জানার চেষ্টা করবো। তাহলে চলুন, আলোচনা দীর্ঘায়িত না করে বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম করার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাক।

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম করার উপায়

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম করার উপায়

অবাক করার বিষয় হচ্ছে বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম করার বিষয়টা অনেকে না জেনে প্রথমে ইগনোর করে। কিন্তু এটা সত্য যে বেশ কিছু বাংলাদেশি মোবাইল অ্যাপস রয়েছে, যেগুলো দ্ধারা সত্যিকার অর্থেই টাকা আয় করা সম্ভব। এরকম বেশ কিছু অ্রান্ড্রয়েড অ্যাপস Android apps রয়েছে মার্কেটপ্লেস গুলোতে। চলুন তাহলে জানা যাক, যেসকল বাংলাদেশি অ্যাপসগুলোর টাকা ইনকাম করা সম্ভব সেই অ্যাপসগুলো সম্পর্কে জানা যাক। আজকের আর্টিকেলে আলোচিত বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম করার অ্যাপসগুলো হলো-

  • Flexiload Business apps
  • Airbnb apps
  • cWork app
  • Sheba Delivery app
  • bKash Limited app
  • Nagad app
  • Sheba bondhu app
  • iFarmer apps
  • Uber Driver app
  • Pathao Drive app

আজকের আর্টিকেলে আমরা এই মোবাইল অ্যাপসগুলো Earn money by Bangladeshi mobile apps সম্পর্কে সম্পূর্ণ জানার চেষ্টা করবো। উপরোক্ত মোবাইল অ্যাপসগুলো অন্য সকল অ্যাপস থেকে কিছুটা হলেও সুরক্ষিত এবং বেশ নিরাপদ। তাই অনলাইনে মোবাইল অ্যাপস দ্ধারা ইনকাম করতে চাইলে উল্লেখিত বাংলাদেশী মোবাইল apps গুলো ব্যবহার করতে পারেন। চলুন তাহলে জানা যাক উল্লেখিত বাংলাদেশি মোবাইল app গুলো সম্পর্কে যা দ্ধারা আমরা টাকা ইনকাম করতে পারি। ( ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই এবং ফেসবুক ভেরিফাই করার নিয়ম জানুন )

Flexiload Business apps

Flexiload Business apps টি হলো মূলত ফ্লেক্সিলোড টাইপ সফটওয়্যার। বাংলাদেশে তৈরি এই অ্যাপস দ্ধারা আপনি আপনার পরিচিত অথবা অপরিচিত সবাইকে টাকা লোড করে দিতে পারেন। বর্তমানে গুগল প্লে স্টোরে Google Play Store এর বেশ ভালো জনপ্রিয়তা রয়েছে। প্রায় ৪.৩+ রেটিং। এবং ১০০০০০ + ইউজার সংখ্যা। ক্রমান্বয়ে Flexiload Business এর ব্যবহার বাড়ছে। এর অনেকগুলো ‍যুক্তিক কারণও রয়েছে। কেননা এখান থেকে আপনি অন্যদের টাকা রিচার্জ করার মাধ্যমে পেতে পারেন আংশিক পারসেন্টেজ। ( ইউটিউব থেকে টাকা তোলার সহজ উপায় )

বাংলাদেশে যতগুলো সিম অপারেটর রয়েছে, সবগুলোতে আপনি মাত্র ১৫-২০ সেকেন্ডের মধ্যে টাকা লোড করে দিতে পারবেন। এটা এতোটাই সহজ যে, যে কেউ অন্যজনের মোবাইলে টাকা লোড করে দিতে পারবে। বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চালে অনেক ভুগতে হয় ফ্লেক্সিলোড নিয়ে। এছাড়াও আপনার বা আত্মীদের মাঝে কারো যদি গভীর রাতে ফ্লেক্সিলোডের প্রয়োজন হয়, তখন আপনি এই বাংলাদেশী appদ্বারা টাকা লোড করে দিতে পারেন।

বর্তমানে এর অনেকগুলো এজেন্ট রয়েছে। আর আপনি যত বেশি টাকা রিচার্জ করে দিতে পারবেন, ততো টাকা আয় করতে পারবেন। যেমন- আপনি যদি একদিনে ১০০০ টাকা ফ্লেক্সিলোড করে দিতে পারেন, তাহলে আপনি হাজারে পাবেন প্রায় ৩০ টাকা করে। আর যদি দিনে ৫০০০ টাকা ফ্লেক্সিলোড করে দিতে পারেন, তাহলে আপনার দিনে টাকা আয় হবে ১৫০ টাকা। এভাবে মাসিক হিসাব করলে আপনার ইনকাম দাঁড়ায় ৪৫০০+ টাকা। মূলত এটা হলো একজন রিটেলার ডিলারের অবস্থা। আর আপনি যদি ডিলার হোন তাহলে আপনার ইনকাম আরো বাড়বে। আর আপনি যথেষ্ট পরিমাণ পরিশ্রম করে গেলে খুব অল্প দিনের মধ্যেই আপনি ডিলার হয়ে যাবেন। মূলত বাংলাদেশি Flexiload Business apss দিয়ে এভাবেই টাকা ইনকাম করা যায়।

Airbnb apps

গুগল প্লে স্টোরে বাংলাদেশিদের দ্ধারা তৈরি করা সবচেয়ে সেরা একটি অ্যাপস হলো Airbnb apps. বর্তমানে প্লে স্টোরে এর রেটিংস হলো ৪.৬! যা অনেক ভালো এবং সুবিধাসম্পন্ন একটি রেটিংস। অন্যদিকে এর ব্যবহারকারী সংখ্যা হচ্ছে ১ মিলিয়ন +. ভাবা যায়? হিউজ পরিমাণ ব্যবহার কারী। তবে এর থেকে ইনকামের পদ্ধতি ও বেশ সারপ্রাইজিং টাইপের।

যেহেতু এর ডাউনলোড সংখ্যা ১মিলিয়ন ক্রস করেছে, সেহেতু আশা করি Airbnb apps সম্পর্কে অনেকে বেশ ভালো জ্ঞান রাখেন। আর যারা এখনো জানেন না যে মূলত Airbnb apps টি কি বা এর কাজ কি, তাহলে চলুন আপনাদেরকে উদ্দেশ্য করে বাংলাদেশি Airbnb apps সম্পর্কে জানা যাক।

Airbnb apps হলো বাংলাদেশি সফটওয়্যার নির্মাতাদের দ্ধারা তৈরি। এর প্রধান কাজ হচ্ছে গেস্টদের কে বাসা বা রুম বাড়া করাতে সাহায্য করা। আপনি পৃথিবীর যেকোনো দেশের/জায়গার রুম এই অ্যাপসটি দ্ধারা বুকিং দিতে পারেন। এবং কি আপনি যদি সৌদি আরবে বসে কুমিল্লার কোনো একটি রুম বুকিং দিতে চান, সেটাও এই Airbnb apps এর মাধ্যমে সম্ভব।

ধরুন, আপনি কুমিল্লার বরুড়া থানায় থাকেন, এখন আপনি আপনার আশে-পাশে থাকা হোটেল মালিকদের সাথে কথা বলে তাদের হোটেলের রুমগুলোকে Airbnb apps এ অ্যাড করে দিলেন। এটা হতে পারে আপনি আপনার রুমটাকেও অ্যাড করে দিতে পারেন এবং কি সম্পূর্ণ বাড়িটাকেও অ্যাড করে দিতে পারেন। যখন দূর-দূরান্ত থেকে গেস্ট এসে ঐ সকল হোটেলের রুম বা আপনার রুমে উঠতে চাইবে, তখন এই অ্যাপসের রেফারেন্স দিবে তাঁরা। আর তখনই আপনি হোটেল মালিক থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন। মূলত এভাবেই বাংলাদেশি Airbnb apps থেকে টাকা ইনকাম করা হয়।

cWork app

cWork app টি হলো বাংলাদেশিদের দ্ধারা তৈরি একটি স্মার্ট হও অত্যান্ত কার্যকারী একটি মোবাইল অ্যাপস। ক্রমান্বয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য এই অ্যাপসটি ফেমাস হচ্ছে। মূলত এই অ্যাপসটি দ্ধারা টাকা ইনকাম করা যায় বিধায়, খুবই দ্রুত গুগল প্লে স্টোরে এর ;চাহিদা প্রচুর বাড়ছে। বর্তমানে এর রেটিংস হলে ৪.১ +. ব্যবহারকারীদের রিভিও ও কমেন্টস দেখে বোঝা গেল যে, সত্যিকার অর্থেই cWork app অ্যাপসটি অনেক উপকারি একটি মোবাইল অ্যাপস।

cWork app থেকে টাকা ইনকাম করার অনেকগুলো পদ্ধতি রয়েছে। যেমন- ভিডিও দেখে টাকা ইনকাম, বিভিন্ন সার্ভে বা জরিপ ফিল-আপ করে টাকা ইনকাম, ভিন্ন রকম অ্যাড দেখে টাকা ইনকাম, অ্যাডে ক্লিক করে টাকা ইনকাম সহ নানা উপায়ে cWork app দ্ধারা টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

বাংলাদেশে তৈরি হওয়া cWork app দ্ধারা টাকা ইনকাম করতে বেশি কিছুর প্রয়োজন পড়ে না। শুধুমাত্র একটি ভালো স্মার্টফোন best smartphone এবং ভালো ইন্টারনেটে কানেকশান best internet connection.। মূলত এই দুটি জিনিস থাকলেই আজ থেকে cWork app থেকে টাকা আয় করতে পারেন।

এছাড়াও cWork app এর মাধ্যমে আপনি লেখালেখি বা ব্লগিং করেও টাকা আয় করতে পারেন। কিভাবে। ধরুণ আপনি একট জিনিস সম্পর্কে জানেন বা সে বিধায় আপনি একটি আর্টিকেল টাইপ লিখে cWork app এর মধ্যে সাবমিট করে রাখছেন। যখন কোনো ব্লগার আপনার আর্টিকেলটি পছন্দ করবে, তখন সে উক্ত আর্টিকেলটিকে cWork app থেকে আর্টিকেলটিকে ক্রয় করে নিতে হবে। এভাবে cWork app বাংলাদেশি অ্যাপস দ্ধারা আপনি অনলাইনে টাকা আয় করতে পারবেন।

Sheba Delivery app

Sheba Delivery app হলো বাংলাদেশিদের তৈরি করা খাবার ডেলিবারি দেওয়া সার্ভিস রিরেটেড অ্যাপস। এই অ্যাপস এর মাধ্যমে আপনি ভোক্তাদের নিকট খাদ্য ডেলিবারি দিতে হবে। বর্তমানে গুগর প্লে স্টোরে Sheba Delivery app এর বেশ ভালো রেটিংস এবং ডাউনলোড সংখ্যা রয়েছে। সামগ্রিক ভাবে চিন্তা করলে Sheba Delivery app টি অনেককে বেকারের হাত থেকে মুক্তি দিয়েছে।

এটার মাধ্যমে যে কেউ সেবা প্রধান করতে পারে। তার জন্য বেশ কিছু শর্ত থাকে। অবশ্যই বাংলাদেশিদের মধ্যে এমন একট বড় ও বিজি অ্যাপসের মাধ্যমে সার্ভিস দিতে হলে বেশ ভালো কিছু নিয়ম নীতি মান্য করতে হবে। সেগুলো হলো-

আপনার নিকট ভালো এবং কার্যকারী একটি স্মার্টফোন থাকতে হবে। এবং তাতে বাংলাদেশিদের তৈরি করা Sheba Delivery app ডেলিবারি অ্যাপসটি ইনস্টল করা থাকতে হবে। পাশাপাশি আপনার সার্ভিসের জন্য ভালো একটি সাইকেল লাগবে। সাইকেল ছাড়া দূড়দূড়ান্তে খাদ্য ডেলিবারি দেওয়া সম্ভব নয়। তাই অবশ্যই আপনাকে এসব বিষয়ে যথেষ্ট পরিমাণ সচেতন থেকে Sheba Delivery app দ্ধারা টাকা ইনকাম করা যেতে পারে।

যখন আপনার ডেলিবারির কাজ শেষ হয়ে যাবে, তখন আপনাকে গ্রাহক নগদ অর্থ দিবে। আর এভাবেই মূলত Sheba Delivery app দ্ধারা টাকা ইনকাম করতে পারেন।

এছাড়াও আরো কিছু বেশ বাধ্যবাধকতা রয়েছে। যেমন আপনি ডেলিবারি করেন, কিন্তু মাঝে মাঝে আপনার বদলি অন্য কাউকে দিয়ে কাজটি করাতে চাচ্ছেন, তা কখনো সম্ভব নয়। অবশ্যই আরো বিরূপ পরিস্থিতিতে থাকলেও আপনাকেই ডেলিবারি করতে হবে।

অবশ্যই আপনাকে Sheba Delivery অফিস কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে। অন্যথায় এই সার্ভিস আপনি প্রোভাইড করতে পারবেন না।  আপনার বয়স অবশ্যই ১৮+ হতে হবে । অন্যথায় আপনি ডেলিবারির কাজের উপযোগী হবেন  না। আবার আপনি যদি হোন্ডা বা বাইক দিয়ে খাবার ডেলিবারি দিয়ে থাকেন, তাহলে আপনাকে ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এভাবেই Sheba Delivery app এ রেজিস্ট্রেশন করে ডেলিবারির কাজটি করতে হবে।

বাংলাদেশি তৈরি Sheba Delivery app এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার এই উপায়টি বেশিরভাগ এখন শহরাঞ্চলে বেশ জনপ্রিয়। সব অঞ্চলগুলো লোকজন খাদ্য ডেলিবারি দিয়ে টাকা আয় করে থাকে। তাই আপনি যদি Sheba Delivery app দিয়ে টাকা আয় করতে চান, তাহলে আপনি আজই রেজিস্ট্রেশন করে খাদ্য ডেলিবারিতে নেমে পড়েন, আশা করি বেশ ভালো একটি এমাউন্ট পরিমাণ টাকা আয় করতে পারবেন।

bKash Limited app

বিকাশের মাধ্যমে সবচেয়ে সহজ উপায়ে টাকা আয় করা যায়। bKash Limited app দ্ধারা এটা সম্ভব। আপনি সহ সবাই আমরা বিকাশ অ্যাপস দ্ধারা টাকা ইনকাম করতে পারি। বর্তমানে বিকাশ হলো মোবাইল ব্যাংকিং গুলোর মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে অন্যতম। বাংলাদেশের সকল স্থানেই বিকাশের সার্ভিস এভেইলএবেল। একজন বিকাশ গ্রাহক তাঁর ইচ্ছা অনুযায়ী যেকোনো জায়গা থেকে টাকা ট্রান্সপার করতে পারে। বর্তমানে বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায়-গ্রামে বিকাশ সার্ভিস চলমান। তাই bKash Limited app দ্ধারা টাকা আয় করার ব্যাপারটাও সহজ হয়ে গিয়ৈছে।

আপনি যদি বাংলাদেশে তৈরি হওয়া bKash Limited app থেকে টাকা আয় করতে চান, তাহলে প্রথমে আপনাকে বিকাশে একটি একাউন্ট খুলতে হবে। বিকাশ একাউন্ট কিভাবে খুলে তা জানতে এটি পড়ুন। যদিও আমরা প্রায়ই সবাই জানি বিকাশ একাউন্ট খুলার নিয়ম এবং বিকাশের লেনদেনের সম্পর্কে আমরা প্রায় সবাই অবগত। তাই প্রথমে আমাদের একটি বিকাশ একাউন্ট খুলতে হবে। এবার সেই একাউন্ট থেকে আমাদের কাজ হলো অন্য জনকে রেফার করা।

আমাদের বন্ধু-বান্ধব সহ আত্মীয় স্বজনদেরকে আমরা bKash refer করতে পারি। বর্তমানে সেপ্টেম্বরে একটি ভালো রেফার অফার রয়েছে। কেমন সে অফার? স্বাভাবিকভাবে আপনি যদি কাউকে রেফার করেন এবং রেফার লিংক থেকে যদি কেউ বিকাশ সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে একটি বিকাশ একাউন্ট খোলে সর্বপ্রথম কোনো প্রকার রিচার্জ বা লেনদেন করে, তাহলে সে রেফারকৃত সাথে সাথেই ২০০০ টাকা পেয়ে যাবে। এটা হলো মূলত সাময়িক একটি বিকাশ অফার।

এছাড়াও ক্রমাগত বিকাশ কর্তৃপক্ষ বিকাশ মোবাইল রিচার্জের ক্যাশব্যাক অফার সহ নানা রকম দিয়ে থাকে। এসকল অফার পেতে পারেন। বিকাশ মুনাফার মাধ্যমেও টাকা আয় করতে পারেন।

মূলত ক্যাশ ব্যাকের মতো অফার পেতে হলে আপনাকে বিকাশ অ্যাপস দ্ধারা শোকৃত মেসেজের অফারগুলোকে ফলো করতে হবে। তাহলেই bKash Limited app এর দ্ধারা অফারগুলোকে উপভোগ করতে পারবেন। আবার অন্যদিকে রেফার করে জিততে পারেন হাজার টাকা। অনেক রেকর্ড রয়েছে যে, বিকাশ রেফার করে কয়েক লক্ষ্য টাকা ইনকাম করেছে। এভাবেও আপনি বাংলাদেশি তৈরি bKash Limited app দিয়ে টাকা আয় করতে পারেন।

Nagad app

বিকাশের ন্যায় ঠিক একইভাবে বাংলাদেশে তৈরি হওয়া Nagad app দিয়েও টাকা আয় করা যায়। Nagad app এর মাধ্যমে আপনি দুইভাবে টাকা আয় করতে পারেন। এক হলো রেফারের মাধ্যমে টাকা আয় আর অন্যটি হলো নগদ মুনাফার মাধ্যমে টাকা আয়। আপনি ইচ্ছা করলে একই সাথে দুইভাবেই টাকা আয় করতে পারেন আবার ইচ্ছা করলে যেকোনো একটি উপায়ে টাকা আয় করতে পারেন।

বাংলাদেশে তৈরি হওয়া Nagad app দিয়ে টাকা আয় করতে চাইলে প্রথমে আপনাকে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এ একটি নগগ একাউন্ট খোলতে হবে। তারপর সেই সাথে প্রোফাইলটা সম্পূর্ণ করে অন্যদেরকে রেফার করতে হবে। যাকে রেফার করবেন, সে যদি আপনার রেফার গ্রহণ করে নগদ অ্যাপস ইনস্টল করে,তাহলে সাথে সাথে আপনি রেফারকৃত টাকা পেয়ে যাবেন। আবার অন্যটি হলো – ধরুণ আপনি একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা আপনার নগদ একাউন্টে রেখে দিলেন। এতে করে নগদ কর্তৃপক্ষ কয়েকদিন বা মাস পর আপনাকে মুনাফা হিসেবে নির্দিষ্ট পরিমাণ একটি অর্থ দিয়ে দিলো। এভাবেও আপনি নগদ থেকে টাকা আয় করতে পারেন।

আপনি যদি বাংলাদেশি Nagad app দিয়ে টাকা ইনকাম করতে চান, তাহলে উপরোক্ত নিয়ম-কানুন মেনে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং থেকে টাকা আয় করতে পারেন।

Sheba bondhu app

বাংলাদেশি Sheba bondhu app টি হলো টাকা আয় করার অন্যতম একটি উপায়। আমরা এতোক্ষণ জানলাম ৬টি অ্যাপস নিয়ে জানলাম, যেগুলো থেকে টাকা আয় করা যায়। আবার এগুলোর মধ্যে অনকেগুলো অ্যাপস রয়েছে যেগুলো থেকে টাকা আয় করতে হলে আমাদের কে রেফার করতে হবে। রেফার করার মাধ্যমে নির্দষ্ট পরিমাণ একটি অর্থ উপার্জন করা যায়।

Sheba bondhu app টিও ঠিক একই রকম। অর্থাৎ আপনি সবার নিকট রেফারের মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন। টাকা ইনকামের জন্য বিরাট একটি সুযোগ। আপনি উপরের রেফার করে ইনকামের এমাউন্ট সম্পর্কে জানলেন, এবার চলুন Sheba bondhu app এর রেফার করা ইনকামের সম্পর্কে কিছু জানি। যেখানে অন্য সকল অ্যাপসগুলে একটি সফল রেফারে ১০-১০০ টাকা অবধি ইনকাম করা সম্ভব। অন্যদিকে Sheba bondhu app দ্ধারা রেফার করলে আপনি ১০০-১০০০+ টাকা আয় করতে পারবেন। তাই বাংলাদেশি Sheba bondhu app দিয়ে টাকা ইনকাম করতে চাইরে আপনি; এই অ্যাপসটিকে ব্যবহার করতে পরেন।

iFarmer apps

iFarmer apps মোবাইল অ্যাপসটি হলো বর্তমানে কৃষকদের জন্য সবচেয়ে উপকারি একটি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল অ্যাপস। এখানেও টাকা ইনকাম করা সম্ভব। কিভাবে?

ওকে ঠিক আছে, চলুন তাহলে iFarmer apps দ্ধারা টাকা ইনকামের উপায় সম্পর্কে জানা যাক। আমরা এখানে টাকা ইনভেস্ট করার মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারি। বাংলাদেশ হলো মধ্যম আয়ের একটি দেশ। এখানে কৃষকরা প্রচুর ভাবে অবহেলিত। তারা যে রকম কষ্ট করে থাকে, তার তুলনায় তাঁরা সম্মান এবং সুযোগ সুবিধা কিছুই পায় না। যে কারণে বাংলাদেশি iFarmer apps তাদেরকে সাহায্য করার পাশাপাশি টাকা আয় করারও একটি সুযোগ তৈরি করে দিয়েচে।

এখানে আপনি প্রথম মোবাইল অ্যাপসটি ডাউনলোড করে একটি একাউন্ট খুলবেন। এরপর এখানে আপনি যেকোনো কৃষিকাজের একটি সেক্টর বাঁচাই করবেন। আপনার ইচ্ছানুযায়ী সেখানেত আপনি টাকা ইনভেস্ট করবেন। সেই টাকা দিয়ে কৃষকরা কৃষিকাজ অথবা গুরু পালন করবে। আরো অনেক রকম প্রজেক্ট রয়েছে। পরোক্ষণে যখন কৃষক ফসল হারভেস্ট করবে, তখন আপনাকে সেই লাভাংশ থেকে মুনাফা বা লাভাংশ পাবেন। এভাবেই মূলত iFarmer apps টি কাজ করে। আর এটি হলো বাংলাদেশে তৈরি হওয়া সবচেয়ে সেরা একটি মোবাইল অ্যাপস।

এখন প্রশ্ন আসতে পারে যে, যদি সেই ফলন বা গরু বা অন্য সকল প্রজেক্ট নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে কি আমাদের ইনভেস্ট লস হবে। উত্তর হলো না। কেননা এখানে আপনি একটি ইনস্যুরেন্স করার সুযোগ পাচ্ছেন। আর সেই ইনস্যুরেন্স থেকে আপনাকে টাকা দিয়ে দিবে। অর্থাৎ বলা চলে এটি হলো একটি নিরাপদ ইনভেস্টমেন্ট।

এছাড়াও আপনি অনেক দূর থেকেও iFarmer apps দ্ধারা আপনার খামার পরিদর্শন করতে পারবেন। মূলত এখানে প্রচুর সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়েছে। তাই বাংলাদেশি iFarmer apps থেকে টাকা ইনকাম করতে আজই এখানে সাইন আপ করুন। তবে এখানে কোনো রকম দূর্ঘটনা ঘটলে Banglatip এর কর্তৃপক্ষ কোনো ভাবেই দায়ী থাকবে না। সুতরাং নিজ দায়িত্বে সব কিছু করুন।

Uber Driver app

Uber Driver app হলো মূলত ড্রাইভিং করে আয় করার একটি মোবাইল অ্যাপস। বর্তমানে এটি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা তে বেশ জনপ্রিয় একটি রাইডার হায়ারিং অ্যাপস। এই অ্যাপস এর মাধ্যমে আপনি একটি অটো-রিকসা হতে বাইক, সিএনজি, বাস, প্রাইভেটকার সহ ইত্যাদি গাড়ি ভাড়া করতে পারেন মূহর্তেই। তাহলে এখানে আপনি কীভাবে টাকা আয় করবেন? এখানে মূলত আপনাকে রাইডার হিসেবে কাজ করতে হবে।

এর জন্য আপনাকে প্রথমে Uber Driver app অ্যাপসে লগ ইন করত হবে। এরপর আপনার যা যা লাগবে তা হলো-

  • আপনার একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স লাগবে
  • অন্যটি হলো বেশ ভালো দক্ষতা থাকতে হবে।

এই দুইটি জিনিস আপনার মধ্যে বিদ্যমান থাকলে আপনিও Uber Driver app এর মাধ্যমে আজ থেকে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

Pathao Drive app

Pathao Drive app টি মূলত Uber Driver app এর মতোই। বিশেষ পার্থক্য হলো Uber হলো আন্তর্জাতিকভাবে সার্ভিস প্রোভাইড করে আর Pathao Drive app হলো বাংলাদেশ কেন্দ্রিক। তাহরে পাথাও থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?

Pathao Drive app থেকে টাকা ইনকাম করতে চাইলে আপনাকে প্র্রথমে Pathao Drive app টি আপনার স্মার্টফোনে ডাউনলোড করে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এরপর আপনার এনআইডি সহ মোবাইল নাম্বার সহ আরো আনুসাঙ্গিক জিনিসপত্র জমা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। প্রয়োজনীয় বাধ্যতামূলক কিছু থাকতে হবে যেমন একটি বাইক, ড্রাইভিং লাইসেন্স সহ হেলমেট, গ্লাভস ইত্যাদি।

এসব থাকলে আপনিও Pathao Drive app এ রেজিস্ট্রেশন করে আজ থেকেই ড্রাইভ করে টাকা ইনকাম করতে পারেন। মূলত বাংলাদেশি Pathao Drive app দিয়ে টাকা ইনকাম করছে হাজার হাজার মানুস। অনায়াসে আপনি এর মাধ্যমে ১৫০০০-১৫০০০০ টাকা অবধি ইনকাম করতে পারবেন। তাই বাংলাদেশি Pathao Drive app দিয়ে টাকা ইনকাম করতে চাইলে আজই অ্যাপসটি ইনস্টল করে দেখানো উপায়ে টাকা ইনকাম করুন।

মূলত এটিই ছিল আজকের আমাদের এই বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম করার পর্ব । এর আগের আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করেছি টাকা আয় করার apps নিয়ে। সুতরাং আশা করি, আজকের আর্টিকেলটি দ্ধারা এখানে পঠিত সবাই বেশ ভালোভাবে উপকৃত হয়েছেন। ( ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম , ফেসবুক থেকে টাকা আয়ের উপায় জানুন )

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম সম্পর্কে শেষ কথা

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম সম্পর্কে শেষ কথা

জাতিগত ভাবে আমরা সব বাঙ্গালিরাই চাই আমাদের ইনকামের রাস্তাটা যেন বাংলাদেশি মানুষ দ্ধারাই তৈরি হয়। যে কারণে আমরা প্রতিনিয়ত ইন্টারনেটে খুঁজে বেড়াচ্ছি টাকা ইনকামের রাস্তা তাও আবার বাংলাদেশি মোবাইল অ্যাপস এর মাধ্যমে। তবে এই স্পর্শ কাতর বিষয়টিকে আবার অনেকে পুঁজি হিসেবে ব্যবহার করে লোকজনের সাথে প্রতারণা করে থাকে। অর্থাৎ টাকা ইনকামের অনেকগুলো মোবাইল অ্যাপস রয়েছে। কিন্তু আপনি জানলে হয়তো অবাক হবেন যে, ইন্টারনেটে থাকা এই সমস্ত মোবাইল অ্যাপসগুলোর অধিকাংশই হলো ফ্রড। তাই টাকা ইনকামের অ্যাপসগুলো হতে যতো সম্ভব দূরে থাকার চেষ্টা করতে হবে। অন্যথায় খুব বড় রকম সমস্যায় পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই আজকে আমরা এই আর্টিকেলে বাংলাদেশি app থেকে টাকা ইনকাম করার উপায় সম্পর্কে বর্ণনা করেছি। আশা করি উপরোক্ত অ্যাপসগুলো দ্ধারা দেখানো পদ্ধতিতে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। সুতরাং কাজ চালিয়ে যান আর সফল হোন।

( আরো জানুন, কিভাবে মোবাইল থেকে কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ দেয় এবং কম্পিউটার থেকে মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করার উপায় )

বাংলাদেশি app দিয়ে টাকা ইনকাম সম্পর্কে আরো জানতেু

Leave a Comment