জন্ডিস রোগের ঘরোয়া টোটকা বা চিকিৎসা (Home remedies for Jaundice)

জন্ডিস রোগের ঘরোয়া টোটকা বা চিকিৎসা নিয়ে আজকের এই নিবন্ধটি উপস্থাপন করা হলো। জন্ডিস নিজে কোনো রোগ নয়, বরং এটি রোগের লক্ষণ। জন্ডিস নানা কারণে হতে পারে । হেপাটাইটিস এ ভাইরাস প্রধানত শিশুদের জন্ডিসের কারণ, তবে যেকোনো বয়সের মানুষই হেপাটাইটিস ই ও বি ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। কখনও জন্ডিস হলে  চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে জন্ডিসের কারণ, মাত্রা, জটিলতা ইত্যাদি জেনে নেওয়া উচিত। 

জন্ডিসের রোগীরা তাদের খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপারে খুবই বিভ্রান্তিতে থাকে। কী খেতে হবে আর কী খাওয়া যাবে না, এই নিয়ে পরামর্শের যেন শেষ থাকে না। কারণ, জন্ডিস রোগীর পথ্যের ব্যাপারে প্রচলিত বিশ্বাস অনেক ক্ষেত্রেই আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানের সঙ্গে খাপ খায় না। তাই  আসুন জেনে নেই  ডাক্তার  দেখানো ছাড়াও জন্ডিস  হলে কিছু ঘরোয়া টোটকা চিকিৎসা পদ্ধতি ।

জন্ডিস কি? (What is jaundice?)

জন্ডিস বলতে আমরা সাধারণত লিভারের প্রদাহজনিত জন্ডিসকেই বুঝি । জন্ডিস হল এমন একটি অবস্থা যেখানে ত্বক, চোখের সাদা অংশ এবং মিউকাস মেমব্রেন হলুদ হয়ে যায়। এই হলুদ রঙটি উচ্চ স্তরের বিলিরুবিনের কারণে হয় । 

জন্ডিস রোগের লক্ষন ও  উপসর্গ : (Signs and symptoms of jaundice)

জন্ডিস রোগের লক্ষন ও উপসর্গ

বাচ্চাদের  ক্ষেত্রে : (In case of children)

সাধারণত, জন্ডিসের তেলতেলে  হলুদ বা কমলা রঙটি প্রথমে শিশুর মুখে উপস্থিত হয়, তারপরে এটি শরীরের নীচে বুক, পেট, বাহু এবং পায়ে স্থানান্তরিত হয় । চোখের সাদাগুলি হলুদ বর্ণের রঙও নিতে পারে। শিশুদের মধ্যে একই দিনের পরিদর্শনের ওয়ারেন্টে থাকা শিশুদের মধ্যে লক্ষণগুলি অন্তর্ভুক্ত: 

  • খুব হলুদ বা কমলা রঙের ত্বকের রঙ 
  • চরম উদ্বেগ 
  • জেগে উঠতে অসুবিধা
  • ঘুমাচ্ছে না
  • কম খাওয়া
  • নোংরা ডায়াপার

যদি আপনার শিশু নিম্নলিখিত কোনও লক্ষণ প্রদর্শন করে তবে জরুরি চিকিৎসকের সহায়তা নিন:

  • অবিচ্ছিন্ন বা উচ্চ-পিচযুক্ত কান্নাকাটি (Continuous or high-pitched crying)
  • ধনুকের মতো তাদের দেহটি আর্কাইভিং (Arching their body like a bow)
  • অস্বাভাবিক চোখের চলাচল (Abnormal eye movements)

প্রাপ্তবয়স্কদের  ক্ষেত্রে : (In adults)

কিছু প্রাপ্তবয়স্করাও জন্ডিসের পক্ষে সংবেদনশীল। অন্যদের জন্য কিছু লক্ষণ প্রদর্শন করে না, তবে লক্ষণগুলি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে:

  • ত্বকের রঙ পরিবর্তন
  • ফ্লু-জাতীয় লক্ষণগুলি যেমন জ্বর এবং ঠাণ্ডা
  • গাঢ় প্রস্রাব
  • মাটির রঙের মল
  • চুলকানি ত্বক
  • ওজন হ্রাস
  • বমি বা মলের মধ্যে রক্ত
  • Tarry কালো মল
  • চরম পেটে ব্যথা 
  • হঠাৎ তন্দ্রাচ্ছন্নতা বা বিভ্রান্তি
  • ক্ষত বা রক্তপাত, কখনও কখনও ছোট লালচে-বেগুনি বিন্দু বা বড় স্প্লটগুলির একটি ফুসকুড়ি সৃষ্টি করে

জন্ডিসের কারণ: (Causes of Jaundice)

শিশুদের ক্ষেত্রে: (In case of children)

শিশুদের জন্ডিস হতে পারে এমন বিভিন্ন  কারণ রয়েছে। এর মধ্যে হলো :

ফিজিওলজিক্যাল জন্ডিস (Physiological Jaundice) : গর্ভাবস্থায় মায়ের লিভারকে শিশুর বিলিরুবিন অপসারণের দায়িত্ব দেওয়া হয়। একবার শিশুর জন্ম হলে, তাদের লিভার দখল করে নেয়। কিন্তু যখন শিশুর লিভার বিলিরুবিন, বিল্ডআপ এবং এর ফলে জন্ডিস ঘটে তা পরিচালনা করার জন্য যথেষ্ট পরিমাণে বিকশিত হয় না। এটি নবজাতকদের মধ্যে জন্ডিসের জন্য সবচেয়ে সাধারণ ব্যাখ্যা এবং এটি সাধারণত উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।

Suboptimal Intake জন্ডিস: এছাড়াও বুকের দুধ খাওয়ানো জন্ডিস ডাব করা হয় । এটি শিশুর প্রথম সপ্তাহে ঘটতে থাকে, যখন তারা বুকের দুধের একটি সর্বোত্তম পরিমাণ গ্রহণ নাও করতে পারে। এই কারণে, অন্ত্রের মধ্যে বিলিরুবিন পুনরায় শোষণে একটি উত্থান রয়েছে এবং এটি রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। একই সময়ে, পর্যাপ্ত পরিমাণে বুকের দুধ না খাওয়া বিলিরুবিন-সমৃদ্ধ মেকোনিয়াম, বা শিশুর প্রথম মলের উত্তরণে বিলম্ব করতে পারে। 

Read More  Health tips Bangla book | ভাত বেশি খেলে কী হয়?

বুকের দুধ জন্ডিস (Breast milk jaundice) : এই ধরণের জন্ডিস সাধারণত শিশুর জীবনের দ্বিতীয় বা পরবর্তী সপ্তাহে ঘটে। যদিও এটি বুকের দুধের জন্ডিসের সঠিক কারণ স্পষ্ট নয়, তবে এটি মনে করা হয় যে বুকের দুধের পদার্থগুলি শিশুর লিভারকে বিলিরুবিন সঠিকভাবে প্রক্রিয়াকরণ করতে বাধা দিতে পারে।

রক্তের ধরণ আলাদা (Blood types are different) : যদি কোনও মা এবং শিশুর রক্তের ধরণ আলাদা (বেমানান) থাকে তবে মায়ের শরীর অ্যান্টিবডি তৈরি করে যা শিশুর লোহিত রক্তকণিকাকে আক্রমণ করে, যা শিশুর জন্ডিস হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে।

এটি ঘটে যখন মায়ের রক্তের Group-O  হয় এবং শিশুর রক্তের Group- এ বা বি এবংমায়ের আরএইচ ফ্যাক্টর নেতিবাচক হয় এবং শিশুটির  আরএইচ (RH+) পজিটিভ হয়।

Glucose-6-ফসফেট ডিহাইড্রোজেনেজ অভাব (Phosphate dehydrogenase) : G6PD  নামক একটি এনজাইম লোহিত রক্ত কণিকাকে কাজ করতে সহায়তা করে। G6PD অভাবের সাথে শিশুর লোহিত রক্ত কণিকাগুলি যথেষ্ট G6PD তৈরি করে না বা যা তৈরি করা হয়েছে তা কেবল কাজ করে না, যার ফলে লোহিত রক্তকণিকাগুলি ভেঙে যায়, জন্ডিস ট্রিগার করে। 

অন্যান্য অন্তর্নিহিত কারণ (Other underlying causes):  নবজাতক জন্ডিসের আরও প্রচলিত ফর্মগুলির চেয়ে আগে বা অনেক পরে দেখা দিতে পারে। জন্ডিসের কারণ হতে পারে এমন কিছু শর্তের মধ্যে রয়েছে:

  • অভ্যন্তরীণ রক্তপাত (internal bleeding)
  • রক্তের সংক্রমণ (blood infection)
  • ভাইরাল বা ব্যাকটেরিয়াসংক্রমণ (Virus or bacterial infection)
  • অবরুদ্ধ বা ক্ষতবিক্ষত পিত্তনালী (Blocked or damaged bile ducts)
  • লোহিত রক্ত কণিকার অস্বাভাবিকতা (Abnormalities of red blood cells)

ঝুঁকির কারণগুলি: (Risk factors)

যদিও জন্ডিস খুব সাধারণ, তবে বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে যা একটি শিশুর ক্ষেত্রে  ঝুঁকির সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে:

৩৭ সপ্তাহের আগে জন্মগ্রহণ করা: একটি উচ্চ সম্ভাবনা রয়েছে যে একটি অপরিণত শিশুর লিভার সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হবে না, যার অর্থ এটি যথেষ্ট বিলিরুবিন প্রক্রিয়া এবং পাস করতে সক্ষম নাও হতে পারে।

জন্ডিসের সাথে ভাইবোন যদি আপনার একটি শিশু থাকে যা একটি শিশু হিসাবে জন্ডিসে পরিণত হয় তবে আপনার অন্যান্য বাচ্চাদেরও জন্ডিস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

জন্মের সময় ক্ষতবিক্ষত : জন্মের সময় ক্ষতবিক্ষত হলে একটি শিশুর জন্ডিস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে, কারণ যখন বড় ক্ষত নিরাময় হয়, তখন তারা উচ্চ মাত্রার বিলিরুবিনের কারণ হতে পারে।

প্রাপ্তবয়স্কদের  ক্ষেত্রে : প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে জন্ডিস সাধারণত ওষুধ বা অন্তর্নিহিত ব্যাধিগুলির প্রতিক্রিয়া দ্বারা  হয় যা যকৃতের ক্ষতি করে, পিত্তের প্রবাহে হস্তক্ষেপ করে বা লোহিত রক্ত কণিকার ধ্বংসকে ট্রিগার করে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে জন্ডিসের কারণগুলি অন্তর্ভুক্ত তবে সীমাবদ্ধ নয়

  • একটি বড় হেমাটোমার পুনরায় শোষণ
  • হেমোলাইটিক রক্তাল্পতা, যেখানে রক্ত কণিকা অকালে ধ্বংস হয়ে যায় এবং রক্ত প্রবাহ থেকে সরানো হয়
  • অ্যাসিটামিনোফেন, পেনিসিলিন, মৌখিক গর্ভনিরোধক, ক্লোরপ্রোমাজিন (থোরাজিন), এবং এস্ট্রোজেনিক বা অ্যানাবোলিক স্টেরয়েড সহ ওষুধগুলি
  • হেপাটাইটিস এ, ক্রনিক হেপাটাইটিস বি এবং সি এবং এপস্টাইন-বার সহ ভাইরাস
  • অটোইমিউন রোগ
  • অ্যালকোহলের অত্যধিক ব্যবহার হেপাটাইটিসের দিকে পরিচালিত করে 
  • বিরল জেনেটিক বিপাকীয় ত্রূটি 
  • পিত্তথলির প্রদাহ
  • পিত্তথলি ক্যান্সার
  • অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সার
  • ডায়াবেটিস এবং স্থূলতা সহ ঝুঁকির কারণগুলি থেকে নন-অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ
Read More  হোমিওপ্যাথিক অশ্বগন্ধার উপকারিতা

জন্ডিস কীভাবে নির্ণয় করা হয়? (How is jaundice diagnosed?)

জন্ডিস কীভাবে নির্ণয় করা হয়

নবজাতকদের ক্ষেত্রে: (For newborns)

নবজাতকদের জীবনের প্রথম 48 ঘন্টার মধ্যে কমপক্ষে প্রতি 8 থেকে 12 ঘন্টা এবং তারপরে 5 দিন বয়সের আগে জন্ডিসের জন্য পরীক্ষা করা উচিত।

পরীক্ষাগুলির মধ্যে রয়েছে:

লাইট মিটার (Light meter): এখানে, ট্রান্সকিউটেনিয়াস বিলিরুবিন (টিসিবি) স্তরটি পরীক্ষা করার জন্য শিশুর মাথায় একটি হালকা মিটার স্থাপন করা হয়

রক্ত পরীক্ষা (blood test) : শিশুর হিল থেকে একটি ছোট রক্তের নমুনা নেওয়ার পরে শিশুর মোট সিরাম বিলিরুবিন (টিএসবি) স্তরটি পরীক্ষা করা হয়।  এটি একটি শিশুর মধ্যে বিলিরুবিনের মাত্রা সঠিকভাবে পরিমাপ করার সর্বোত্তম উপায়।

প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে: (প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে)

প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য, জন্ডিসের হলুদ হওয়া সনাক্ত করা সহজ হতে পারে, তবে অন্তর্নিহিত কারণটি শূন্য করার জন্য একটি শারীরিক পরীক্ষার প্রয়োজন হয়।

রক্ত পরীক্ষা (blood test) : বিভিন্ন রক্ত পরীক্ষা গুলি ব্যবহার করা যেতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে সম্পূর্ণ রক্ত গণনা, রক্ত সংস্কৃতি, লিভার এনজাইম পরীক্ষা এবং হেপাটাইটিস পরীক্ষা।

ইমেজিং টেস্ট (Imaging test) : পেটের আল্ট্রাসনোগ্রাফি প্রায়শই পিত্তনালীতে বাধা সনাক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। একটি কম্পিউটারাইজড টোমোগ্রাফি (সিটি) স্ক্যান, চৌম্বকীয় অনুরণন ইমেজিং (এমআরআই), 

লিভার বায়োপসি (Liver biopsy): যদি ভাইরাল হেপাটাইটিস, ড্রাগ ব্যবহার, বা টক্সিনের এক্সপোজার সন্দেহ করা হয় বা যদি কোনও রোগ নির্ণয় অস্পষ্ট হয় তবে একটি বায়োপসির প্রয়োজন হতে পারে। লিভারের মাধ্যমে পিত্তের প্রবাহমূল্যায়নের জন্য অন্যান্য পরীক্ষাগুলিও ব্যবহার করা যেতে পারে।

জন্ডিসের সময়কাল: (Duration of Jaundice)

জন্ডিস বুকের দুধ খাওয়ানো শিশুদের মধ্যে প্রায় এক মাস স্থায়ী হওয়া মোটামুটি সাধারণ। আর ফর্মুলা খাওয়ানো শিশুদের জন্য, জন্ডিস সাধারণত দুই সপ্তাহের মধ্যে কমে যায়। 

প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে জন্ডিসের সময়কাল অন্তর্নিহিত কারণের উপর নির্ভর করে  এবং স্বল্পমেয়াদী থেকে অপ্রকাশ্য হয়ে উঠে । যদি আপনার জন্ডিস কোনও সংক্রমণের দ্বারা ট্রিগার হয়ে যায় তবে আপনার সংক্রমণটি পরিষ্কার হয়ে গেলে আপনার লক্ষণগুলি সম্ভবত আরও ভাল হয়ে উঠবে।  আপনার যদি দীর্ঘমেয়াদী লিভার ডিজিজ থাকে যেমন দীর্ঘস্থায়ী হেপাটাইটিস বা অনিচ্ছাকৃত হেপাটোবিলিয়ারি ক্যান্সার, আপনার জন্ডিস উন্নতি করতে পারে না।

জন্ডিসের জন্য ১২ টি কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিকার: (12 Effective Home Remedies for Jaundice)

জন্ডিসের জন্য ১২ টি কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিকার

এখন আপনার জন্ডিসের চিকিৎসায় সহায়তা করার জন্য কিছু জনপ্রিয় ঘরোয়া প্রতিকার দেখুন। মনে রাখবেন যে এই প্রতিকারগুলির কোনটিই আপনার ডাক্তারের দ্বারা সুপারিশকৃত ওষুধগুলিকে প্রতিস্থাপন করতে পারে না:

1. প্রাকৃতিক সূর্যালোক: (Natural sunlight)

যখন শিশুদের জন্ডিস ধরা পড়ে, ফটোথেরাপি ছাড়াও, ডাক্তাররা তাদের সূর্যের আলোতে প্রকাশ করার পরামর্শ দেন কারণ এটি উপকারী।

Read More  কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম | কীভাবে খাবেন কালোজিরা

2. আখের রস: (Sugarcane juice)

আখের রস যকৃতকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে এবং এর সঠিক কার্যকারিতায় সাহায্য করে। আপনার জন্ডিসের উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন এক গ্লাস খান।

3. ছাগলের দুধ: (Goat’s milk)

পুষ্টির বিষয়ে গরুর দুধের সমান, ছাগলের দুধ হজম করা সহজ এবং শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য একইভাবে উপযুক্ত। ছাগলের দুধেও উপকারী অ্যান্টিবডি রয়েছে যা জন্ডিস নিরাময়ে সাহায্য করে।

4. সবুজ আঙ্গুরের রস: (Green grape juice)

সবুজ আঙুরের রস আমাদের  লিভারের কার্যকারিতা উন্নত করতে সাহায্য করে। এটি সিরাম বিলিরুবিনের মাত্রাও ভারসাম্য রাখে এবং জন্ডিস নিরাময় করে।

5. আদা: (Ginger)

আদার একটি  চমৎকার অ্যান্টিঅক্সিডেটিভ বৈশিষ্ট্য রয়েছে এবং এটি হাইপোলিপিডেমিকও।  তাই এটি লিভারকে সাহায্য করে। সেরা ফলাফলের জন্য আদা চা আকারে ব্যবহার করা যেতে পারে ।

6. রসুন: (Garlic)

রসুন একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এটি লিভারের ডিটক্সিফিকেশনে সাহায্য করে এবং এইভাবে জন্ডিস নিরাময়ে অবদান রাখে। জেনে নিন রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে।

7. লেবু: (Lemon)

লেবুর রস পিত্ত নালীগুলিকে অবরোধ করতে সাহায্য করে কারণ এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এছাড়াও, এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং লিভারের আরও ক্ষতি বন্ধ করে।

8. দই: (Yogurt)

দইয়ের প্রোবায়োটিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এটি সিরাম বিলিরুবিনের মাত্রা কমিয়ে আনে এবং ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া থেকে সুরক্ষা প্রদান করে। আপনার জন্ডিস সারাতে প্রতিদিন এক বাটি দই খান। 

9. টমেটো: (Tomato)

টমেটোতে পাওয়া লাইকোপেন একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এটি লিভারের ডিটক্সিফিকেশন এবং জন্ডিস নিরাময়ে সহায়তা করে। সেদ্ধ টমেটোর রস তৈরি করুন এবং প্রতিদিন এক গ্লাস খান।

10. আমলা: (Amalaki)

আমলা ভিটামিন সি এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় পুষ্টিতে সমৃদ্ধ যা আমাদের জন্ডিসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে । এটি লিভারের কার্যকারিতা উন্নত করে এবং সিরাম বিলিরুবিনের মাত্রা ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। আমলা সিদ্ধ করার পরে  পেস্ট তৈরি করে পানি ও মধু মিশিয়ে প্রতিদিন খাওয়া যেতে পারে।

11. তুলসী: (Basil)

তুলসী বা পবিত্র তুলসী লিভারের জন্য উপযুক্ত কারণ এতে হেপাটোপ্রোটেকটিভ বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি অনাক্রম্যতা উন্নত করে এবং সংক্রমণ বন্ধ করে। তুলসী পাতা জলে সিদ্ধ করে প্রতিদিন খান। তুলসীর স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আরও জানুন।

12. পেঁপে পাতা: (papaya leaves)

পেঁপে পাতায় প্রচুর পরিমাণে প্যাপেইন এনজাইম রয়েছে যা হজমে সহায়তা করে এবং লিভারের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে। পাতা পিষে রস ছেঁকে নিন। প্রতিদিন এক টেবিল চামচ খান।

জন্ডিস  হলে যা খাওয়া যাবে না: (What not to eat if jaundiced)

  • চিনি বা অতিরিক্ত মিষ্টিজাতীয় খাবার, 
  • কাঁচা লবণ, 
  • অতিরিক্ত তেল-মসলাযুক্ত খাবার, 
  • রেড মিট (গরু, মহিষ, ছাগলের মাংস), 
  • অ্যালকোহল, 
  • ট্রান্স ফ্যাট ও স্যাচুরেটেড ফ্যাটযুক্ত খাবার 

জন্ডিস রোগের ঘরোয়া টোটকা বা চিকিৎসা সুফল দায়ক তবে, কোন ঘরোয়া প্রতিকার ব্যবহার করার আগে, আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। নিয়মিত ওষুধ এবং ঘরোয়া প্রতিকারের মাধ্যমে, আপনি আরও কার্যকরভাবে জন্ডিস মোকাবেলা করতে সক্ষম হবেন।

স্বাস্থ্য ভালো রাখার সহজ উপায় আপনার যা জানা দরকার

1 thought on “জন্ডিস রোগের ঘরোয়া টোটকা বা চিকিৎসা (Home remedies for Jaundice)”

  1. Amar jondis hoyese blood a jondiss dora porce sir but hbs test korci negative asce akhon amr jondis komanor jonno ki korte pari

    Reply

Leave a Comment