নতুন জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম – গুগল একাউন্ট খোলার নিয়ম

জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম

নতুন গুগল একাউন্ট খোলার নিয়ম বা জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম– How to create a Google account or gamil account? এই বাক্যগুলো যদি এখন লিখে প্রাপ্ত বয়স্ক কেউ গুগলে সার্চ দেয় তাহলে এটা নিয়ে আপসোস করা ছাড়া কিছুই করার নেই! তথ্য ও প্রযুক্তি নির্ভর এই যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে আমাদের প্রয়োজন প্রযুক্তি নির্ভর জ্ঞান ও প্রযুক্তি নির্ভর চর্চা। উভয়ের কম্ভিনেশনে আমরা যুগের সাথে তাল মিলিয়ে দ্রুত গতিতে ছুটে চলতে পারবো।

গুগল একাউন্ট (Google Account) বা যার অন্য নামটি হলো জিমেইল একাউন্ট (Gmail account) যাই বলেন না কেন, আমাদের প্রতিনিয়ত প্রতিটি কাজে বর্তমানে ব্যবহৃত হয়। স্মার্টফোনের অ্যাপস ডাউনলোড (apps download of smartphone) হতে কাউকে জিমেইল করা, গুগল ম্যাপের (googel map) সাহায্য নেওয়া, ইউটিউব ব্যবহার(use youtube) সহ ইত্যাদি ;কাজে প্রতিনিয়ত আমাদের দরকার পড়ে একটি জিমেইলের বা গুগল একাউন্টের। ( টাকা ইনকাম করার বাংলাদেশি অ্যাপসগুলো )

অনেকে হয়তো ভেবে থাকে যে, গুগল একাউন্ট খোলা খুবই কঠিন অথবা বিড়ম্বণার কাজ কিন্তু বাস্তবিক অর্থে মোটেও তা সঠিক নয়। খুব সহজেই আপনি হাতে থাকা স্মার্টফোন দিয়েই আপনি একটি নতুন জিমেইল বা গুগল একাউন্ট খুলতে পারেন। Google এর রিপোর্ট অনযায়ী ২০২১ সাল অবধি বাংলাদেশে মোট জিমেইল বা গুগল একাউন্টের সংখ্যা হলো ৪.৮ কোটি। হিউজ একটি সংখ্যা। ক্রমাগত এই সংখ্যাটা দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ( ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম এবং ইউটিউব থেকে টাকা তোলার পদ্ধতি সম্পর্কে জানুন )

কিভাবে জিমেইল আইডি খুলবো ?

কিভাবে জিমেইল আইডি খুলবো

জিমেইল আইডি কিভাবে খুলবো তা নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন! যেহেতু এখন স্মার্টফোন দ্ধারা সংঘটিত প্রতিটি কাজেই জিমেইলের ব্যবহার লক্ষণীয়, তাই গুগল একাউন্ট খোলার নিয়ম জেনে রাখা আমাদের জন্য অত্যাবশ্যকীয়। এখন অনেকে অনেকভাবে নতুন গুগল একাউন্ট বা জেমেইল খোলে থাকে। এখন আপনি বা আমি সেগুলো থেকে কতটি নিয়ম সম্পর্কে অবগত? ধরে নিলাম, আজকের আর্টিকেলটি যারা যারা পড়ছে, তাঁরা ইন্টারনেট জগতে সম্পূর্ণ নতুন। তাই আজকের আর্টিকেলে আমরা ২টি নিয়ম সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবো, যে নিয়মগুলোর মাধ্যমে আমরা একটি জিমেইল বা গুগল একাউন্ট খোলতে পারি। সে দুটি উপায় হলো-

  • গুগল প্লেস্টোর থেকে জিমেইল একাউন্ট খোলা
  • অন্যটি হলো গুগল ক্রোম বাউজার দ্ধারা ‍জিমেইল বা গুগল একাউন্ট খোলা

মূলত এই দুটি নিয়ম হলো জিমেইল বা গুগল একাউন্ট খোলার সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং চলমান পদ্ধতি। তাহলে চলুন আলোচনা বিলম্বিব না করে জানা যাক নতুন জিমেইল খোলার নিয়ম সম্পর্কে।

গুগল প্লেস্টোর থেকে জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম – Way to open a Gmail account from the Google Play Store

সাধারণত অ্যানড্রয়েড ব্যবহারকারীর android user মধ্যে ৭০-৯০% মানুষ গুগল প্লেস্টোর ব্যবহার করার সময়ই তাদের জিমেইল বা গুগল একাউন্টটি খোলে থাকে। স্বাভাবিকভাবে আমরা যখন আমাদের স্মার্টফোনের জন্য কোনো একটি নতুন সফটওয়্যা ডাউনলোড (Software download for smartphone) করতে যাই বা মোবাইলে থাকা সফটওয়্যারগুলোকে আপডেট software update করতে চাই, তখন আমাদেরকে অবশ্যই প্লে স্টোরকে ব্যবহার করতেই হয়। অন্যথায় কোনো উপায় নেই সেই সকল সফটওয়্যারগুলোকে আপডেট করার। কিন্তু আপনি যখনই অ্যাপসগুলোকে আপডেট করতে পদক্ষেপ নিবেন, তখনেই সমস্যা সামনে আসবে। অর্থাৎ জিমেইল একাউন্ট gmail account ছাড়া গুগল প্লে স্টোর কোনো ভাবেই আপনাকে পারমিট দিবে না অ্যাপস ডাউনলোড অথবা আপডেট করতে। তখন আপনাকে হয়তো নতুন একটি গুগল একাউন্ট খোলে নিতে হবে অন্যথায় পুরোনো আপনার ব্যবহৃত একটি একাউন্ট দিয়ে সাইন আপ করে তখন ডাউনলোড করতে হবে। এখন ধরে নিলাম আপনার পুরাতন কোনো গুগল জিমেইল old gmail account নেই। এই ক্ষেত্রে আপনি কি করবেন? অবশ্যই একটি নতুন জিমেইল একাউন্ট খোলতে create a new gmail account হবে। তাই চলুন তাহলে বিলম্ব না করে জেনে নেওয়া যাক গুগল প্লেস্টোর থেকে কিভাবে একটি নতুন গুগল একাউন্ট বা জিমেইল একাউন্ট খোলা যায় তার নিয়মগুলো। স্টেপ বাই স্টেপ নিয়মগুলো দেওয়া হলো-

  • প্রথমে আপনি আপনার মোবাইল ফোনটি অন করে গুগল প্লে স্টোর অ্যাপস এ ক্লিক করুন।
  • এবার দেখুন গুগল প্লে স্টোর আপনার সামনে একটি নতুন ইন্টারফেস নিয়ে এসেছে। এখানে ”Sign in” নামে একটি অপশান রয়েছে। এখন যেহেতু আপনার কোনো নতুন জিমেইল একাউন্ট নেই, তাই আপনাকে নিম্নে থাকা “Create account” অপশানটিতে ক্লিক করতে হবে।
  • “Create account” এ ক্লিক করার পর দুটি অপশান আপনার নিকট শো হবে। একটি হলো “For myself” আর অন্যটি হলো “To manage my business” এখান থেকে আপনাকে প্রথমটিতে অর্থাৎ “For myself” অপশানটিতে ক্লিক করতে হবে।
  • এবার আপনি দেখুন নতুন আরেকটি ইন্টারফেস আপনার সামনে এসেছে। সেটি হলো “Create a Google Account” নামে। এখানে দুটি খালি ঘরের অপশান রয়েছে।
  • খালি ঘরের প্রথমটি হলো “First name” এবং দ্বিতীয়টি হলো “Last name”
  • এখন এই দুটি অপশানে আপনি আপনার নামের প্রথম অংশ প্রথম খালি ঘরে দিয়ে দিন এবং দ্বিতীয় অংশে নামের শেষ অংশটি দিয়ে দিন।
  • ধরুণ, প্রথম অংশে দেওয়া হলো Love এবং পরের অংশে দেওয়া হলো Bangladesh
  • এবার Next এ ক্লিক করুণ।
  • নতুন আরেকটি ফেজে চলে আসলেন। “Basic information” নামে ফেজটিতে আপনাকে আপনার জন্ম তারিখ, মাস, দিন, বছর দিতে হবে। এখানে দেখুন খুব সুন্দর করে দেওয়া রয়েছে- “Month”, “Day”, “Year” নামে অপশানগুলো। এখান থেকে প্রথমে আপনি আপনার জন্মসালের মাস এর নাম দিন, এরপর দিনের তারিখটি দিয়ে দিন এবং সর্বশেষ আপনার জন্ম বছর বা ইয়ারটা দিন। এবার দেখুন নিম্নে “Gender” নামক একটি অপশান রয়েছে। এখানে একটি ড্রপ ডাউন মেনু রয়েছে। আপনার লিঙ্গ সিলেক্ট করুন। ছেলে হলে “Male” এবং মেয়ে হলে “Female” দিয়ে দিন।
  • সবগুলো ঘর ফিল-আপ করার পর এবার নিম্নে থাকা “Next” এ ক্লিক করুন।
  • এখন আরেকটি নতুন ইন্টারফেস সামনে আসবে। সেটি হলো “How you’ll sign in” নামে। এখানে দেখুন “username” নামে একটি খালি ঘরের অপশান হবে। এখানে আপনাকে আপনার পূর্বে দেওয়া নামের সাথে মিল রেখে জিমেইল নামটি দিতে হবে। ধরুণ আমি দিয়ে দিলাম “lovebangladesh” । এখানে দেওয়া নামে আপনি কোনো রকম স্পেস দিবেন না। সবগুলো বর্ণ small letter এ রাখবেন। এভাবে নাম দিয়ে Next ক্লিক করুন।
  • Next ক্লিক করার পর যদি [email protected] .com নামটি গুগলের নিকট Available থাকে তাহলে আপনাকে সরাসরি “Create a strong password” নামে নতুন পেজে নিয়ে যাবে। আর যদি Available না থাকে তাহলে নিম্নে দেখুন উক্ত জিমেইল সম্পর্কি অন্য আরো কয়েকটি জেমেইল গুগল আপনাকে রিকমান্ড করছে। এখান থেকে আপনি একটি জিমেইল চয়েজ করতে পারেন বা উক্ত জিমেইলে কিছু পরিবর্তন এনে আবার Next এ ক্লিক করতে পারেন।
  • এবার দেখুন “Create a strong password” এখানে আপনি আপনার জিমেইলের জন্য স্ট্রং পাসওয়ার্ড দিন। পাসওয়ার্ড দিয়ে পুনরায় Next ক্লিক করুন।
  • এখন “Confirm you’re not a robot” নামে আরেকটি পেজ সামনে আসবে। এখানে বাংলাদেশ বা আপনি যে দেশে থাকেন, সে দেশের ফোন নাম্বার দেওয়ার জন্য একটি খালি ঘর থাকবে। দেশ সিলেক্ট করে সেই দেশে ব্যবহৃত আপনার মোবাইল নাম্বারটি এখানে দিয়ে দিন।
  • এবার আবার Next বাটনটিতে ক্লিক করুণ।
  • Next অপশানে ক্রিক করার পর এবার আপনার মোবাইল নাম্বারটিতে ৬ডিজিটের কোড পাঠাবে। সেই ভেরিফিকেশন কোডটি আপনি  এখানে দিয়ে দিন।
  • এবার দেখুন নতুন করে আরেকটি পেজ এসেছে। এখানে রয়েছে “Add phone Number to account?” নামে অপশান। এখানে অটোমেটিক আগে দেওয়া নাম্বারটি থাকবে। এখন আপনি শুধু Next এ ক্লিক করুণ।
  • এখন দেখুন “Review your account info” নামে আরেকটি পেজ এসেছে। এবারও Next দিন। এই পেজটি হলো মূলত পূর্বে দেওয়া সকল তথ্যগুলো আরেকবার রিভিও করার জন্য।
  • নতুন ”Privacy and Terms” নামে আরেকটি পেজ ওপেন হয়েছে। এখান থেকে একদম নিচে স্ক্রল করে আসুন এবং দেখুন “I agree” নামে একটি অপশান রয়েছে। এখানে ক্লিক করুণ।
  • ব্যাজ! আপনার নতুন একটি গুগল একাউন্ট বা জিমেইল খোলা হয়ে গিয়েছে।

এভাবেই একটি জিমেইল একাউন্ট খোলতে পারেন গুগল প্লে স্টোরের মাধ্যমে। এখন আপনি আপনার জিমেইলটিকে গুগল একাউন্ট হিসেবেও ব্যবহার use your gmail account করতে পারেন। যেহেতু আমরা কিভাবে প্লে স্টোর ব্যবহার করে একটি নতুন জিমেইল একাউন্ট খোলতে পারি তা শিখলাম, তাহলে এবার চলুন জানা যাক কিভাবে গুগল ক্রোম বাউজার ব্যবহার create a new gmail by using google chrome করে একটি নুতন জিমেইল বা গুগল একাউন্ট খোলতে পারি তার সম্পর্কে জানা যাক।

গুগল ক্রোম বাউজার দ্ধারা ‍জিমেইল বা গুগল একাউন্ট খোলার নিয়ম – Way to open a Gmail account by using Google Chrome Browser

গুগল প্লে স্টোরের মতো করে গুগল ক্রোম বাউজার দ্ধারাও একটি জিমেইল বা গুগল একাউন্ট খোলা সম্ভব। তবে খুব কম সংখ্যক ইউজার আছে, যারা গুগল ক্রোম বাউজার দ্ধারা জিমেইল একাউন্ট খোলে থাকে। তবে সংখ্যাটা হোক খুব কম কিন্তু জানার আগ্রহ সবারই থাকতে পারে। তাই এখন আমরা জানতে চেষ্টা করবো কিভাবে ‍গুগল ক্রোম বাউজার দ্ধারা কিভাবে একটি জিমেইল খোলা যায়, তার সম্পর্কে। জিমেইল দ্ধারা আপনি ইউটিউব বা ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করে কোনো কমেন্ট বা কাজকর্ম করতে পারবেন না। তাই সকল ধরণের সুবিধা পেতে আমাদেরকে নিজের নামে একটি জিমেইল একাউন্ট খোলে নিতে হবে। চলুন তাহলে ক্রোম বাউজার ব্যবহার করে জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে জানা যাক। স্টেপ বাই স্টেপ জিমেইল খোলার নিয়ম তুলে ধরা হলো-

  • প্রথমে আপনি আপনার মোবাইলটির ডাটা অন করে গুগল ক্রোম বাউজারে চলে যান।
  • এবার সার্চ বারে লিখুন “Create a Gmail Account” এবং সার্চ করুন।
  • অনেকগুলো সার্চ রেজাল্ট আসছে। এখানে থেকে আপনিক “account.google .com/signup/” বা এই লিংকে চলে যান।
  • এবার দেখুন উপরের স্টেপগুলোর ন্যায় সমস্ত অপশানগুলো আসছে এবং সকল তথ্যগুলো স্টেপ বাই স্টেপ দিয়ে দিন। যেভাবে উপরের নিয়মে একাউন্টে খুলেছেন, ঠিক একইভাবে এখানেও আপনি একাউন্ট খুলবেন।
  • শুধু মাত্র সার্চ করে গুগল জিমেইল খোলার ইন্টারফেস এ আসার পর বাকি কাজগুলো উপরে উল্লেখিত নিয়ম এর ন্যায়।
  • তাই আর পূণরাভিত্তি না করি। আশা করি বোঝতে পেরেছেন যে কিভাবে গুগল ক্রোম ব্রাউজার ব্যবহার করে একটি নতুন গুগল জিমেইল একাউন্ট খুলতে পারি।

মূলত এটাই হলো Google new account খোলার পদ্ধতি বা নিয়ম। তবে আপনি ইচ্ছা করলে আরো অনেকগুলো ব্রাউজার রয়েছে ইন্টারনেটে, সেগুলোও ইউজ করে একটি নুতন একাউন্ট ক্রিয়েট করতে পারেন।

জিমেইল আইডির সুবিধা বা উপকারিতা – Advantage of Gmail account

জিমেইল আইডির সুবিধা

জিমেইল আইডির বা একাউন্টের সুবিধা অনেক রয়েছে ইন্টারনেট জগতে। একজন ছাত্র হতে শুরু করে ব্যবসায়িক পর্যন্ত সবারই জিমেইল ব্যবহার করতে হয় দরকারে। তেমনি যারা অনলাইনে কাজ করে,তাদের দিকটি বলার আর অপেক্ষা রাখে না। তাদের অধিকাংশের জিমেইল একাউন্ট প্রতিনিয়ত খোলা রাখতে হয়। অবাক হওয়ার বিষয় হচ্ছে যে, আমাদের বাংলাদেশেও জিমেইল এর ব্যবহার দিন-দিন বাড়ছে। সম্ভবত জিমেইলের সুবিধার কারণে। যাইহোক, এই পার্টে আমরা জিমেইল একাউন্টের সুবিধাগুলো জানার চেষ্টা করবো। চলুন তাহলে জানা যাক জিমেইল আইডি বা একাউন্টের সুবিধা বা উপকারিতাগুলো। জিমেইল একাউন্টের উপকারিতাগুলো হলো-

  • জিমেইলের মাধ্যমে বড় আকারের ফাইল পাঠানো।
  • গুগল ম্যাপ ব্যবহার করতে পারবো।
  • ইউটিউবে কোনো চ্যানেলকে সাবসক্রাইব বা কমেন্ট করতে জিমেইল প্রয়োজন। সেটি পাড়বো।
  • অ্যাপস ডাউনলোড করতে পারবো।
  • অডিও-ভিডিও গান বা ফাইল ডাউনলোড করতে পারবো।
  • হারানো মোবাইল জিমেইলের মাধ্যমে ফিরিয়ে আনা যায়।
  • ছবি-ভিডিও অথবা যেকোনো ফাইল গুগলে ফ্রীতে রাখা যাবে।
  • ওয়েবসাইটে ভিজিট করে কমেন্ট করতে পারবো।
  • সরকারি সেবা পেতে সেসব সাইটে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবো।
  • মূলত গুগলের সকল সেবা পাওয়া যাবে জিমেইলের মাধ্যমে।

এখানে উল্লেখিত সুবিধাগুলো ছাড়াও আরো অনেকগুলো সুবিধা রয়েছে গুগল একাউন্টের বা জিমেইলের। তাই আপনি যদি উপরোক্ত সুবিবধাগুলো ছাড়াও ইন্টারনেটের মাধ্যমে আরো সুবিধা পেতে চান, তাহলে আপনার একটি জিমেইল বা গুগল একাউন্ট থাকা জরুরি। ( এডসেন্স থেকে টাকা ‍তোলার উপায়টাকা ইনকাম করার অ্যাপস সম্পর্কে জানুন )

জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম নিয়ে শেষ কথা

আজকের আর্টিকেলে মূলত দুটি পদ্ধতি বা নিয়মই শিখা গেল! আসলে বাস্তবিক অর্থে কেউ যদি পূর্বে কোনো একবারও ইন্টারনেট ইউজ করে থাকে, তাহলে তাঁর জন্য জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম জানা বেশিরভাগ সময়ই দরকার পড়ে না। কেননা গুগল তাঁর একাউন্ট খোলার নিয়ম একেবারে অনেক সোজা করে দিয়েছে। পাশাপাশি তাদের অফিশিয়াল সাইটেও জিমেইল খোলা নিয়ে অনেক তথ্য দেওয়া রয়েছে। তাই সার্বিক দিক বিবেচনা করে আপনাদে মাঝে যারা যারা গুগল একাউন্ট বা জিমেইল একাউনট খোলার নিয়ম সম্পর্কে অবগত ছিলেন না,তাদের জন্যই মূলত এই আজকের পোস্টটি। তাই এখন বলা চলে যে, যদি আপনি আজকের পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন, তাহলে অবশ্যই এতক্ষণে জেনে যাওয়া কথা যে, কিভাবে একটি নতুন গুগল একাউন্ট বা জিমেইল খোলতে হয়। আর আরো জেনেছেন যে কোন কোন সুবিধাগুলো আমরা একটি গুগল জিমেইলে থেকে পেতে পারি।

জিমেইল একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে আরো জানতে

Leave a Comment