ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় – Way to withdraw money from YouTube

ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায়

ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় জানার আগ্রহ সবেচেয়ে বেশি দেখা যায় ইউটিউবারদের মধ্যে। আর এটা স্বাভাবিক একটি বিষয়। বর্তমান সময়ে অনলাইনে টাকা আয় করার জনপ্রিয় উপায় এর মধ্যে ইউটিউবিং হলো অন্যতম। ইউটিউব হলো ভিডিও শেয়ারিং এর অন্যতম জনপ্রিয় একটি প্লাটফর্ম। এখানে যে কেউ নিয়মিত ভিডিও শেয়ার বা আপলোড করে চ্যানেল মনিটাইজ করে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করতে পারে। ‍তবে ইউটিউবে টাকা ইনকামের পূর্ব শর্ত হলো চ্যানেলটিকে মনিটাইজ করা। আর চ্যানেল মনিটাইজ করার পূর্ব শর্ত হলো ইউটিউব চ্যানেল ভেরিফাই করা। এসব কার্যক্রম সঠিকভাবে করে থাকলে আপনি একটি মনিটাইজযুক্ত ইউটিউব চ্যানেল থেকে খুব সহজেই টাকা আয় করতে পারবেন। এখন আজকের প্রশ্নটা হলো ইউটিউব থেকে ইনকামকৃত টাকা কিভাবে তোলা যায় অথবা টাকা তোলার উপায় কি? মূলত উক্ত প্রশ্নকে কেন্দ্র করেই আজকের পুরো আর্টিকেলটি। ইউটিউব থেকে টাকা তোলার পদ্ধতি বা উপায় সহ আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন-উত্তর সহ সাজানো হয়েছে আজকের আর্টিকেলটি। সুতরাং মনোযোগ সহকারে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন। আশা করি ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা উঠানোর উপায় সম্পর্কে সম্পূর্ণ ডিটেইলস জানতে পারবেন।

বর্তমানে ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় – The way to withdraw money from YouTube

বর্তমানে ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায়

সচারাচর ইউটিউব কর্তৃপক্ষ অন্য কোনো উপায়ে টাকা লেনদেন করে থাকে না ব্যাংক ছাড়া। তাই বর্তমানে ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় হলো ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা তোলা। এছাড়াও আর বিকল্প কোনো পদ্ধতি এখনো নেই। এই ক্ষেত্রে যখন আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন এবং সেই চ্যানেলে নিয়মিত ভিডিও দেওয়ার পর মনিটাইজেশনের উপযুক্ত হয়, তখন আপনাকে টাকা ইনকামের জন্য বাধ্যতামূলক চ্যানেল মনিটাইজ করতে হবে। অর্থাৎ গুগল অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করতে হবে। গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদনের জন্য বেশ কিছু তথ্য আপনার কাছ থেকে গুগল কর্তৃপক্ষ চাইবে। এর মধ্যে আপনার ঠিকানা, পোস্টাল কোড সহ ইত্যাদি কিছু তথ্য চাইবে। সবগুলো তথ্য আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র অনযায়ী দিবেন। কোনো রকম ভুল করা যাবে না। এভাবে তথ্য বসিয়ে গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করলে গুগল আপনার চ্যানেলটিকে কিছুদিন বা কয়েক ঘন্টা রিভিউ করার পর আবেদন অ্যাপ্রোভ করে নিবে। এরপর যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেলের গুগল অ্যাডসেন্সে সর্বমোট 10$ জমা হবে, তখন গুগল কর্তৃপক্ষ থেকে আপনাকে নোটিশ দিবে গগুল অ্যাডসেন্সের পিন ভেরিফাই করার জন্য। এবার আপনি ভেরিফাই এর জন্য আবেদন করবেন এবং ২-৪ সপ্তাহের মধ্যে আপনার অ্যাডসেন্স ভেরিফাই পিনটি আপনার পোস্ট অফিসে চলে আসবে। এখন আপনাকে পিনটি ভেরিফাই করতে হবে। আর এই ভেরিফাই করার সময় আপনার নিকট হতে গুগল  একটি ব্যাংক একাউন্ট চাইবে। তখন আপনাকে সঠিক এবং আপনার নিজস্ব নামে থাকা ব্যাংক একাউন্ট নাম্বারটি কে সেট করে দিতে হবে। অবশ্যই খেয়াল রাখবেন, সেটি হলো ব্যাংক একাউন্টের নাম বা সমস্ত তথ্য যেন গুগল অ্যাডসেন্সে দেওয়া তথ্যেরে সাথে হুবহু মিল থাকে। অন্যথায়, গুগল কর্তৃপক্ষ আপনার গুগল অ্যাডসেন্সটিকে ব্যান করে দিতে পারে। তাই অবশ্যই এই দিকটিকে খেয়াল রাখতে হবে। এখন প্রশ্ন আসতে পারে যে, তাহলে আমরা পেমেন্ট পাবো কিভাবে বা ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় কি? এর উত্তর হচ্ছে যখন আপনার গুগল অ্যাডসেন্সে 100$ পূর্ণ হয়ে যাবে, তখন আপনি আপনার ইচ্ছানুযায়ী আপনার ব্যাংক একাউন্টে সেই ডলারগুলোকে ট্রান্সপার করতে পারবেন। প্রতি মাসের ২০-২৮ তারিখের মধ্যে গুগল কর্তৃপক্ষ অ্যাডসেন্সের টাকা আপনার ব্যাংকে পাঠিয়ে দিবে। সেখানে আবার ৩-৬ দিন লাগতে পারে ডলার থেকে টাকায় কনভার্ট হতে। তখন আপনি ব্যাংকে গিয়ে ইউটিউবের টাকাটি তুলতে পারবেন। মূলত এটাই হলো ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায়। এখন চলুন ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উঠানোর আনুসাঙ্গিক আরা তথ্য জানা যাক।

Read More  বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য কার্যকারী ১০ টি অ্যাপস

ইউটিউব থেকে টাকা তোলার অন্যান্য উপায়

ইউটিউব থেকে টাকা তোলার অন্যান্য উপায়

অধিকাংশ ইউটিউবাররা চায় সরাসরি ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা না তোলে অন্য কোনো উপায়ে টাকা তোলতে। বেশির ভাগ জনেই চায় ডেভিট বা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ইউটিউবের টাকা তোলতে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো ইউটিউব কর্তৃপক্ষ লেনদেনের বিষয়ে অনেক শক্ত। তাঁরা ব্যাংকিং মাধ্যম ছাড়া অন্য কোনো  উপায়ে টাকা তোলার অনুমতি দেয় না। তাই যারা যারা ভাবছেন ব্যাংক এর মাধ্যমে টাকা না তোলে কোনো একটি আন্তর্জাতিক কার্ড দিয়েই ইউটিউবের অর্থ তোলবেন, সেটা সম্ভব নয়। সুতরাং বোঝতে পারলাম যে, ইউটিউবের থেকে টাকা তোলার একমাত্র বৈধ এবং সহজ উপায় হলো ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা তোলা।

ইউটিউব থেকে আয় করা টাকা নিয়ে প্রশ্ন-উত্তর

ইউটিউব থেকে আয় করা টাকা নিয়ে প্রশ্ন-উত্তর

ইন্টারনেট জগতে রয়েছে নানা রকম প্লাটফর্ম। যেখান থেকে খুব সহজেই বর্তমানে টাকা আয় করা সম্ভব। যেমনি ইউটিউবের মাধ্যমেও যেকেউ টাকা আয় করতে পারবে। কিন্তু টাকা আয় করতে গিয়ে পড়তে হয় নানা রকম ঝামেলায়। যেমন আজকের আর্টিকেলেটি তাঁর মধ্যে অন্যতম একটি সমস্যা। যা ইউটিউবাররা প্রথম ইনকামের টাকা তোলতে গিয়ে মুখামুখি হতে হয়। ঠিক একই ভাবে এরকম আরো অনেক প্রকার সমস্যার মুখামুখি হতে হয়। যা বিভিন্ন প্লাটফর্মগুলোতে উল্লেখ করে প্রশ্ন করে থাকে। ঠিক এরকমই কয়েকটি প্রশ্ন এখানে উল্লেখ করে তার উত্তরগুলো দেওয়ার চেষ্টা করা হলো। চলুন তাহলে সে প্রশ্ন ও উত্তরগুলো সম্পর্কে জানা যাক।

ইউটিউব থেকে কত টাকা আয় করা যায়? How much money

ইউটিউব থেকে কত টাকা আয় করা যায়, তা নিয়ে রয়েছে নানা রকম ঝলপনা-কল্পনা। অনেকে অনেক কিছু ভেবে থাকে এটি নিয়ে। এখন আপনি যদি জানতে চান, ইউটিউব থেকে কিভাবে আয় করা যায় – How to income form YouTube , তাহলে আপনি আমার পূর্বের পোস্টটি পড়তে পারেন। আজকের আর্টিকেলের প্রথমেই আমরা বলেছিলাম যে, ইউটিউব থেকে আয় করার মূলত উপায় হলো গুগল অ্যাডসেন্সের Google Adsense  মাধ্যমে। এখন এটি সম্পূর্ণ নির্ভর করে গুগল অ্যাডসেন্সের উপর। কিন্তু অনেকগুলো বিষয় আপনার উপর নির্ভর করে। যেমন আপনি যদি কোয়ালিটিফুল ভিডিও বানিয়ে আপলোড দেন Quality Video upload, তাহলে অবশ্যই আপনার ভিডিওতে ভিউ সংখ্যা বাড়বে increase your youtube video view। আর একটি কথা জেনে রাখা ভালো যে, ইউটিউবের ইনকামটি মূলত ভিডিও এর মধ্যে দেখানো অ্যাড এর ক্লিক এর উপর নির্ভর করে। যখন কেউ আপনার ভিডিও দেখবো এবং ভিডিও দেখানোর মধ্যে যে অ্যাড আসে, সেটিতে যদি ক্লিক Ads Click পড়ে তাহলে আপনার চ্যানেল দ্ধারা ইনকাম হবে। মূলত ক্লিকের মাধ্যমে ইনকাম হয়। এখন যত ভিউ ততো ক্লিকের সম্ভাবণা। তাই ভিডিও কোয়ালিটি ভালো রাখেন, আশা করি ক্লিকও বেশি পড়বে আর ইনকামও বেশি হবে। তবে বাংলাদেশে সিপিসি মান Low ads CPC value খুব কম। তাই সীমিত পরিসরে ইনকাম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

Read More  ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়
ইউটিউবের ভিউ এর মাধ্যমে কি টাকা আয় করা যায়?

হ্যাঁ, তবে কত ভিউ তে কত টাকা দিয়ে থাকে তা শুধুই ইউটিউব নির্ধারণ করে থাকে। এবং কি ক্লিক পড়লেও সিপিসি উপর বেস করে আপনাকে ওরা টাকা দিবে।

ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের – Debit or Credit Card মাধ্যমে ইউটিউবের টাকা তোলার উপায় আছে কি-না?

উত্তর হলো না। কেননা ইউটিউব কর্তৃপক্ষ তাদের সমস্ত লেনদেন করে থাকে ব্যাংকিং সিস্টেমে। সুতরাং আপনার টাকা ব্যাংকে আসার পর আপনি ঐ ব্যাংক থেকে আপনি টাকা কার্ডে ইনডোর্স – Money indorse in card করতে পারবেন।

ইউটিউবের টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে তোলতে কোনো সমস্যায় পড়তে হয়?

স্বাভাবিকভাবে কোনো রকম সমস্যার মুখামুখি হতে হয় না। কিন্তু নানা রকম নির্দিষ্ট কারণে মাঝে মাঝে ২-৫ দিনের জন্য তোলার জন্য অপেক্ষা করতে হয়। যখন একাউন্টে Bank Account টাকা জমা হবে, তখন দিনে দিনেই টাকা তুলতে পারবেন।

YouTube চ্যানেলের টাকা তোলার উপায় নিয়ে শেষ কথা

আপনি যদি একজন ইউটিউবার হোন এবং ইউটিউবের টাকা তোলার উপায় নিয়ে এখনো নানা রকম দ্ধিধাগ্রস্থ হয়ে থাকেন, তাহরে দয়া করে পুনরায় পোস্টটি পড়ুন। কেননা আজকের আর্টকেলে আমরা জেনেছি কিভাবে একজন ইউটিউবার তার চ্যানেলের অর্জিত টাকা তোলতে পারে। পাশাপাশি জেনেছি কোন কোন উপায়ে ইউটিউব থেকে টাকা তোলা যায়। এছাড়াও বেশ কিছু প্রশ্ন-উত্তর সম্পর্কেও জেনেছি। তাই পরিশেষে বলা যায় যে, যদি আপনি ইউটিউবের টাকা উঠাতে চান, তাহলে ব্যাংকিং পদ্ধতিতে তোলেন এবং কোনো রকম ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড ইউজ করার চেষ্টা করবেন না। অন্যথায় আপনার ইউটিউবের অ্যাডসেন্স একাউন্টেটি ব্যান হতে পারে। তাই সবচেয়ে নিরাপদ এবং সহজ উপায় হিসেবে ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় হিসেবে যেকোনো একটি ব্যাংক একাউন্ট ব্যবহার করুন। আশা করি আজকের আর্টকেলের মাধ্যমে আপনি ইউটিউবের টাকা তোলা নিয়ে সমস্ত ধরনের প্রবলেমের সমাধান পেয়েছেন।

Read More  ফেসবুক ভেরিফাই করার নিয়ম | ভেরিফাই করার সুবিধাগুলো

ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় সম্পর্কে আরো জানতে

Leave a Comment