মোবাইল ফোনে ব্যবহৃত অতিব গুরুত্বপূর্ণ ৫টি অ্যাপস

মোবাইল ফোনের গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপস

মোবাইল ফোনে ব্যবহৃত গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপসগুলোর মধ্যে ক্ষেত্র বিশেষে ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। আমরা প্রতিনিয়ত আমাদের প্রয়োজনে নানা ধরনের মোবাইল অ্যাপস – Mobile apps ব্যবহার করি। আর এই অ্যাপসগুলো ব্যবহার করে না থাকা প্রায়ই অসম্ভব। আর এমন কিছু আনকমন আনকমন মোবাইল অ্যাপস Uncommon mobile apps রয়েছে, যেগুলোর দ্ধারা আমরা বেশ ভালোভাবে প্রতিনিয়ত উপকৃত হতে পারি। সেগুলো আমাদের দৈনন্দিন কাজের গতিকে অনেকাংশে বাড়িয়ে দিতে পারে। আমাদের ভিন্ন অ্যাঙ্গেল বা দিক থেকে সহায়তা করতে পারে। ( ভিটমেট অ্যাপস ডাউনলোড করুন )

আজকের আমরা এমন ৫টি সাহায্যকারী মোবাইল অ্যাপস  5 mobile apps সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো যে অ্যাপসগুলো বর্তমানে প্রায় আনকমন তবে এর ব্যবহারকারীর সংখ্যাও কম নয়। অর্থাৎ যদিও আমাদের অধিকাংশেই এই অ্যাপসগুলো সম্পর্কে ধারণা রাখি না তবে অনেক বুদ্ধিমানরা এই অ্যাপসগুলো অনেক আগ থেকেই ব্যবহার করছে এবং সেগুলোকে কাজে লাগিয়ে দৈনন্দিন কাজগুলোকে আরো সহজ করে নিচ্ছে। ( প্রতিদিন ব্যবহুত ১২টি অ্যাপস সম্পর্কে জানুন )

বর্তমানে যেহেতু ধীরে ধীরে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে ঠিক একইভাবে সফটওয়্যার mobile software ইঞ্জিনিয়ারগণও মোবাইল ব্যবহারকারীদের সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে নানা ধরনের মোবাইল অ্যাপগুলো আবিষ্কার করে মানুষকে বিভিন্নভাবে উপকৃত করছে। যেমন বর্তমানে চলমান কোভিড-১৯ তে এমন আর্থিক দূর্বস্থা এড়াতে মার্কেটে এমন অনেকগুলো টাকা আয় করার মোবাইল অ্যাপস নিয়ে এসেছে, যেগুলো দ্ধারা বেশ ভালো ভাবে মানুষ উপকৃত হয়েছে। আবার অন্যদিকে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য বেশ কয়েকটি উপকারি অ্যাপস রয়েছে, যেগুলো দ্ধারাও বাংলাদেশের ছাত্র-ছাত্রীরা উভয়দিক থেকে লাভবান হতে পারে। তবে অলসতা ও অন্য সকল বিনোদনের কারণে তাঁরা এসব উপকারি জিনিসগুলো বা তথ্যগুলো থেকে বঞ্চিত হচ্ছো। এর দায়-বার শুধু তাদের উপরই পড়বে। তাই চোখ-কান-মুখ সব সময় খোলা রেখে দেখতে হবে কি কি দ্ধারা বা তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর যুগে আমরা কিভাবে উপকৃত হতে পারি সে দিকে নজর রাখতে হবে। এছাড়াও যেহেতু আমরা সবাই মোবাইল ইউজার,তাই ভালোভাবে কিভাবে মোবাইলটাকে কাজে লাগিয়ে আমরা উপকৃত হতে পারি সে দিকেও নজর রাখতে হবে। যে বিধায় আজকের আমরা মোবাইলের উপকারি ৫টি অ্যাপস নিয়ে আলোচনা করবো। যে মোবাইল অ্যাপসগুলো থেকে আমরা প্রতিনিয়ত লাভবান হতে পারি। তাহলে চলুন,আলোচনা দীর্ঘায়িত না করে সেই উপকারি মোবাইল অ্যাপসগুলো সম্পর্কে জানা যাক।

মোবাইল ফোনের ৫টি উপকারি অ্যাপস – 5 important apps for mobile

মোবাইল ফোনের ৫টি উপকারি অ্যাপস

প্রতিনিয়ত ব্যবহারের জন্য ৫টি কিংবা ১০টি মোবাইল অ্যাপস (এখানে ৫ অথবা ১০ হলো ‍শুধু একটি সংখ্যা মাত্র) আমাদের প্রতিটি কাজেই দরকার হয়। এখন কাজ-কর্ম, অবস্থান ইত্যাদির উপর ডিপেন্ড করে উক্ত সফটওয়্যারগুলোর প্রয়োজন বোধ হয়। এখানে যে যে সফটওয়্যারগুলোর উল্লেখ করা হয়েছে তার সবগুলো কিন্তু সবার জন্য নয় আবার এমনও হতে পারে এখানে যে যে অ্যাপসগুলো রয়েছে সেগুলো থেকে অনেকে মাত্র ১টি অ্যাপস ব্যবহার করে। তাই প্রথমে বলে রেখেছি যে, কাজ-কর্ম, অবস্থান, দক্ষতা ইত্যাদির উপর নির্ভর করে আজকের আর্টিকেলটি একেক জনের জন্য একেক ভাবে কাজে লাগবে। আলোচনা দীর্ঘায়িত না করে চলুন তাহলে সেই কাঙ্গিত উপকারি ৫টি মোবাইল অ্যাপস সম্পর্কে জানা যাক। উপকারি ৫টি মোবাইল অ্যাপসগুলো হলো-

  • কোরা (Quora)
  • গুগল নোটস (Google Notes)
  • গুগল ট্রান্সলেট ( Google Translate)
  • গুগল ম্যাপ (Google Map)
  • গুগল ল্যান্স (Google Lens)

উপরোক্ত এই ৫টি অ্যাপস আমাদের দৈনন্দিন চলাফেরায় বেশ কার্যকারী। তবে এখানে সবগুলোই যে সবার জন্য কার্যকারী তা কিন্তু নয়। ব্যক্তি, পরিস্থিতি ইত্যাদির উপর নির্ভর করে উক্ত অ্যাপসগুলো বেশ কার্যকর ভূমিকা পালন করে থাকে। বিশেষ করে অনুরূপ পরিস্থিতির জন্য এখানে উল্লেখিত পাঁচটি অ্যাপস অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এখানে উল্লেখযোগ্য যে, পরিস্থিতি, ব্যক্তি, অবস্থান ইত্যাদির উপর ডিপেন্ড করে উক্ত পাঁচটি অ্যাপস সবার ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন পারপাসে ব্যবহার হবে। তাই যদি  আপনি জানতে চান যে, এই ৫টি মোবাইল এপস কি কি কাজে কিভাবে ব্যবহার করা হয়, তাহলে স;ম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন। ( মোবাইল দিযে সহজেই ওয়েবসাইট তৈরি করুণ এবং সহজে প্লে স্টোর অ্যাপস ডাউনলোড করুন )

Read More  ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়

কোরা (Quora)

পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা ও জনপ্রিয় একটি প্রশ্ন-উত্তর সাইট ও ফোরাম হলো কোরা বা Quora. বর্তমানে এর ব্যবহারকারীর সংখ্যা রয়েছে পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই। অনেকগুলো ভাষার ভার্সন রয়েছে এতে। আপনি যখন কোনো প্রশ্নের উত্তর খোঁজে পাবেন না অথবা সেই প্রশ্নের উত্তরটি আপনার এলাকা বা পরিচিত কেউ জানে না, তখন আপনি কোরাতে প্রশ্ন আকারে করতে পারেন। এত করে মূহর্তেই আপনি আপনার প্রশ্নে উত্তর পেয়ে যাবে। এটিই হলো কোরা তথা Qu;ora অন্যতম কাজ।

দ্ধিতীয়ত, আপনি যদি বাংলাদেশী হোন এবং মাত্র একটি ভাষা তথা বাংলা ভাষা সম্পর্কেই অভিজ্ঞ হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি বাংলাতেও কোরাতে প্রশ্ন করতে পারবেন। এবং কি আপনি বাংলাদেশের অন্য সকল বাংলা ভাষায় করা প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে পারেন। মূলত সার্বিকভাবে চিন্তা করলে কোয়ারা হলো প্রশ্ন-উত্তর দুনিয়ার সবচেয়ে সেরা ও অন্যতম একটি সাইট। যদিও এটি হলো একটি ফোরাম। কোরা রিলেটেড অন্য আরেকটি প্রশ্ন-উত্তর সাইট হলো রেডিট (Reddit) এটিও হলো একটি প্রশ্ন উত্তর সাইট। হুবহু কোরা (Quora) এর মতোই হলো রেডিট সাইটটি।

তাই যদি আপনার মনে এমন কোনো প্রশ্ন থেকে থাকে, যে প্রশ্নের উত্তর আপনি সরাসরি কারো কাছ থেকে সঠিক উত্তর পান নি এবং একই সাথে আপনার পরিচিত কেউ জানে না, তাহলে আপনি আপনার প্রশ্নগুলো কোরাতে করতে পারেন। আশা করি কয়েক মিনিট বা ঘন্টার ব্যবধানে সঠিক ও যথাযথ উত্তর পেয়ে যাবেন।এখানে একটি বিষয় বলে রাখা ভালো যে, সেটি হলো উল্লেখিত রেডিট হলো ইংরেজী ভার্সনের একটি ফোরাম সাইট। যে বিধায় ঐ জায়গায় বাংলা প্রশ্ন না করে কোরাতে (Quora) বাংলা প্রশ্নটি করতে পারেন। এতে করে আপনি যথাযথ এক বা একাধিক উত্তর পাবেন।

গুগল নোটস (Google Notes)

আজকের আর্টিকেলের দ্ধিতীয় গুরুত্বপূর্ণ মোবাইল অ্যাপসটি হলো গুগল নোটস বা Goolge Notes. এটি হলো একটি এমন গুরুত্বপূর্ণ মোবাইল অ্যাপস, যা আপনাকে চলাপেরা হতে শুরু করে সার্বিক দিক থেকে সহায়তা করতে পারে। গুগল নোটস কি? গুগল নোটস হলো গুগলের একটি সার্ভিস । এটি আপনি অ্যাপস বা ইউআরএল হিসেবেও পাবেন ইন্টারনেটে। যেহেতু মোবাইল অ্যাপস নিয়ে কথা হচ্ছে, সেহেতু আমরা গুগল নোটস এর মোবাইল অ্যাপন নিয়েই কথা বলি।

গুগল নোটস এ আপনি দৈনন্দিন হিসাব-নিকাশ হতে শুরু করে নানা রকম কাজ-কর্মের নোটস করে রাখতে পারি। উদাহরণ সরূপ বলা যায় যে, ধরুণ আপনি আজ থেকে ৫-৭ দিন পর কোথাও যাবেন অথবা শপিং এ যাবেন। কিন্তু আপনি এখনই অনেক রকম প্লান করে ফেললেন! কি মনে হয় আপনার, আজকে যে যে প্লানগুলো তৈরি করলেন, ৭দিন পর যখন শপিং go to shopping এ যাবেন, তখন কি বরাবর প্লান মনে থাকবে? আমার তো মনে হয় প্রায় ২০-৩০% প্লান ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। আর এই বিধায়, যদি আপনার নিকট তখন গুগল নোটস থাকে, তখন আপনি সাথে সাথেই মাথায় আসা আপনার প্লানগুলো গুগল নোটস এ লিখে ফেলেন। আর তখন আপনি ৭দিন বা ১মাস পর শপিং Shop এ যান, এটা কোনো সমস্যা নয়, সমস্যা তৈরি হবে যদি মনে না থাকে। এখন আর আপনার ভুলে যাওয়ার সমস্যা তৈরি হবে না। কেননা আপনি আপনার সবগুলো প্লান পই পই করে গুগল নোটস Google notes এ তুলে রেখেছেন। এখন জাস্ট আপনি শপিং এ গিয়ে গুগল নোটসটি ওপেন করুন এবং প্লান মোতাবেক কাজ বা শপিং for shopping করুন। এটিই হলো মূলত গুগল নোটস এর সুফল। এখানে তো একটি উদাহরণের মাধ্যমে দেখানো হয়েছে। কিন্তু আমরা যদি বিস্তরভাবে চিন্তা করি, তাহলে আমরা দৈনন্দিন সব কাজের মধ্যে  গুগল নোটসকে ব্যবহার করতে পারি।

Read More  প্লে স্টোর অ্যাপস ডাউনলোড কিভাবে করবো

গুগল ট্রান্সলেট ( Google Translate)

গুগল ট্রান্সলেট হলো বর্তমানে ইন্টারনেটে থাকা সবচেয়ে ভালো ও উপকারি একটি মোবাইল অ্যাপস Good and important apps. ।এই অ্যাপস এ প্রায় ১৯৮+ ভাষা সংযুক্ত রয়েছে। আপনি যদি ফরেন কোনো দেশে যান এবং সেই দেশের ভাষা সম্পর্কে কোনো জ্ঞান না রাখেন, তাহলে আপনার তৎক্ষানাৎ চিন্তা কমাতে গুগল ট্রান্সলেট বেশ চমৎকারভাবে উপকৃত করবে। তাই আপনিও আপনার মোবাইল ফোনে আজই গুগল ট্রান্সলেট সফটওয়্যারটি ইনস্টল করুন। বর্তমান সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য আরোও গুরুত্বপূর্ণ মোবাইল অ্যাপস হলো এটি। ছাত্র ছাত্রীদের প্রধান কাজ হচ্ছে ভাষা ও পড়ালেখা সম্পর্কে অবগত থাকা। কিন্তু যদি তাঁরা যেমন ইংরেজী বিষয়ে অভিজ্ঞ না হয়, তাহলে তাঁরা এই অ্যাপস থেকে হেল্প নিতে পারে। গুগল ট্রান্সলেটে আপনি এক পাশে বাংলা ও অন্যপাশে ইংরেজী ভাষা সেট করতে পারবেন। যদি আপনি বাংলাতে কিছু লিখেন বা বয়েসে বলেন তাহলে অন্যপাশে তার ইংরেজী বাক্য অটোমেটিক তৈরি হয়ে যাবে। এটি হলো গুগল ট্রান্সলেটের প্রধান ও উপকারি একটি বৈশিষ্ট্য। এছাড়াও যদি আপনি অন্য কোনো দেশে যেমন জাপনা, ভিয়েতনাম, চায়না,ইন্ডিয়া, মালশিয়া, আরবদেশগুলো সহ ইত্যাদি যেকোনো দেশে যান, এবং সেই দেশের ভাষা সম্পর্কে কোনো জ্ঞানই আপনার নেই, তাহলে ঐ মূহর্তে আপনার কেমন টেনশন ফিল হবে? অবশ্যই অনেক। আর সেই কারণেই গুগল ট্রান্সলেট এই সুবিধাটি দিয়েছে। অর্থাৎ আপনি যেকোনো ভাষা থেকে গুগল ট্রান্সলেটের মাধ্যমে বাংলা ভাষায় কনভার্ট করতে পারবেন। তাহলে বোঝতেই পারছেন Google Translate আমাদের দৈনন্দিন জীবনে চলাপেরায় কতটা উপকারি একটি অ্যাপস।

গুগল ম্যাপ (Google Map)

অন্যসকল অ্যাপসের ন্যায় গুগল ম্যাপ ও আমাদের নানা ভাবে সহায্য সহায়তা করতে পারে। তবে এর ব্যবহার সম্পর্কে আমাদেরকে অবগত থাকতে হবে। সাধারণত সবাই ভাবে গুগল ম্যাপ শুধু মাত্র পথ চিনাতে উপকার করে।কিন্তু বাস্তবিক অর্থে গুগল ম্যাপের রয়েছে শত উপকারিতা। যার মধ্যে একটি হলো রাস্তার ম্যাপ দেখানো । তবে অন্য সকল উপকারিতাগুলো একটি আর্টিকেলে তুলে ধরা প্রায় অসম্ভব। যে কারণে বেশ কয়েকটি উপকারিতার দিক তুলে ধরা হলো। গুগল ম্যাপ দ্ধারা আমরা যেকোনো জায়গা যেতে চাইলে শুধু সার্চ বারে ঐ জায়গার নাম লিখলেই আমরা ঐ জায়গা সম্পর্কে মূহর্তেই অবগত হয়ে যাবো। এছাড়াও আপনি যদি আগ থেকেই কোনো একটি অপরিচিত জায়গা তথা পৃথিবীর যেকোনো জায়গা সম্পর্কে অবগত হতে চান, তাহলে আপনি গুগল ম্যাপের মাধ্যমে তা হতে পারেন।

ধরুণ, আপনি কুমিল্লা কান্দিরপাড় একটি দাঁত চিকিৎসকের নিকট আসতে চাচ্ছেন এবং আপনি সাথে সাথে গুগল ম্যাপস এ কান্দিরপাড় লিখে সার্চ দিলেন এবং ম্যাপ ঘুরে ঘুরে একটি দন্ত চিকিৎসালয় পেলেন। এখন আপনি যদি সেই চিকিৎসালয়েল উপর ক্লিক করেন তাহলে আপনি ঐ চিকিৎসকের নাম জানতে পারবেন, ঐ চিকিৎসালয় সপ্তাহের কোন কোন দিনগুলোতে খোলা থাকে, দিনের কোন অংশে বন্ধ থাকে এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ঐ চিকিৎসকের মোবাইল নাম্বারটি সহ আপনি পেয়ে যাবেন। এবার অবাক হলেন তো? জ্বি, এভাবেই আপনি শত শত উপকার দ্ধারা উপকৃত হতে পারেন গুগল ম্যাপ Google Maps দ্ধারা।

Read More  তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির গুরুত্ব এবং ব্যবহার

গুগল ল্যান্স (Google Lens)

গগুল ল্যান্স হলো সর্বোপরি সবার জন্য উপযোগী একটি অ্যাপস। উক্ত ল্যান্সটি প্রায় মেজিকের ন্যায় কাজ করে। কিভাবে কাজ কারে? জানলে সত্যেই আপনি উপকৃত হবেন। গুগল ল্যান্স হলো এমন একটি মোবাইল অ্যাপস, যে অ্যাপস এর মাধ্যমে আপনি পৃথিবীর যত অচেনা জিনিস আছে, সবগুলোকে আপনি এক এক করে সেগুলোর নাম সহ প্রাইজ সহ কোথায় পাওয়া যায়, এরকম A-Z সমস্ত তথ্য গুগল ল্যান্সের দ্ধারা বের করতে পারবেন।

ধরুণ আপনার সামনে একটি মাউচ রয়েছে। ধরে নিন আপনি এটিকে কোনো দিন দেখে নি অথবা চিনেনও নি। এখন এর সম্পর্কো জানার প্রচুর ইচ্ছা জাগ্রত হয়েছে আপনার। এমতোবস্থায় আপনি কি করবেন? হয়তো কাউকে জিজ্ঞেস করবেন। কিন্তু সে মূহর্তে যদি আপনার নিকট গুগল ল্যান্স সফটওয়্যারটি থাকে, তাহলে সাথে সাথে অ্যাপসটি ওপেন করে মাউচটির দিকে তাক করে ধরবেন। ব্যাস, এইটুকুই। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে গুগল ল্যান্স আপনাকে সম্পূর্ণ একটি ডিটেইলস নিয়ে আসবে। যা থেকে উক্ত মাউচের সম্পর্কে সম্মুখ একটি ধারণা লাভ করতে পারবেন। তবে এখানে একটি জিনিস অবশ্যই আপনাকে মেইক সিউর করতে হবে। সেটি হলো আপনাকে অবশ্যই ইন্টারনেট কানেক্ট করে রাখতে হবে। অন্যথায় আপনি গুগল ল্যান্স কাজ করবে না। আর এভাবেই আপনি গুগল ল্যান্স Google Lens দ্ধারা উপকৃত হতে পারেন।

এই ছিল উপরোক্ত ৫টি অ্যাপসের সংক্ষিপ্ত একটি রিভিও। আপনি যদি সত্যিকার অর্থে কোনো মোবাইল অ্যাপস দ্ধারা উপকৃত হতে চান, তাহলে দয়া করে উপরোক্ত যেকোনো একটি ইনস্টল করুন এবং ডে বাই ডে উপকৃত হোন। তবে অবশ্যই আপনাকে আপনার কাজ, পরিস্থিতি ইত্যাদির উপর ডিপেন্ড করে সফটওয়্যার বাঁচাই করে ডাউনলোড করতে হবে।

মোবাইল ফোনের উপকারি অ্যাপস নিয়ে শেষ কথা

মোবাইল ফোনের উপকারি অ্যাপস নিয়ে শেষ কথা

আজকের আর্টিকেলে আমরা এমন ৫টি মোবাইল অ্যাপস সম্পর্কে আমরা জানতে পারলাম, যেগুলো দ্ধারা সত্যিকার অর্থেই যেকেউ উপকৃত হতে পারে। তবে এটাও শিউর যে, আজকের আর্টিকেলেটি যারা যারা পড়েছে, তাদের অধিকাংশের মোবাইলেই এই অ্যাপসগুলোর  যেকোনো একটি বা একাধিক অ্যাপস ইতিমধ্যেই রয়েছে। তবে যারা যারা এখনো উপকৃত হতে পারে নি, তাদের জন্যই উক্ত মোবাইল অ্যাপসগুলোর রিভিও নিয়ে আসলাম। আশা করি পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়েছেন এবং বেশ ভালোভাবে উপকৃত হয়েছেন। ( অল্প সময়ে জিমেইল একাউন্ট তৈরি করুন )

এখানে যে যে অ্যাপসগুলোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে, সবগুলো মোবাইল অ্যাপস হলো আমাদের চলমান জীবনের জন্য ক্ষেত্রে ভেদে ভিন্ন ভিন্ন কাজ বেশ উপকারি অ্যাপস। তাই যদি আপনিও এই অ্যাপসগুলো সম্পর্কে পূর্ব কোনো জ্ঞান না রেখে থাকনে, তাহলে অবশ্যই এখানে থেকে ৫টি অ্যাপস ব্যবহার করে দেখতে পারেন অথবা যেকোনো কয়েকটি বা একটিও অ্যাপস ব্যবহার করে দেখতে পারেন। যদি অ্যাপসগুলো ভালো লাগে তাহলে এখন থেকে ব্যবহার করতে পারেন অন্যথায় আনইনস্টল করে দিতে পারেন। তবে সার্বিকভাবে চিন্তা করলে উল্লেখিত সবগুলো হলো উপকারি মোবাইল অ্যাপস।

মোবাইলের ‍উপকারি অ্যাপস সম্পর্কে আরো জানতে

Leave a Comment