ব্লগ সাইটে SEO friendly পোস্ট করার সঠিক নিয়ম

ব্লগ সাইটে পোস্ট এসইও করার সঠিক নিয়ম

ডিজিটাল মার্কেটিং জগতে টিকে থাকার জন্য SEO জানা যেমন জরুরি তেমনি এসইও ফ্রেন্ডলি ব্লগ সাইট এবং ব্লগ সাইটে পোস্ট এসইও করার সঠিক নিয়ম জানাও অত্যাবশ্যক। কিন্তু এই ফিল্ডে যারা সম্পূর্ণ নতুন, তারা ব্লগ পোস্ট সম্পূর্ণভাবে করতে গিয়ে প্রায়ই হিমশিন খায়। অনেক বিষয় আছে যা তারা ব্লগে পোস্ট দেওয়ার সময় সম্পূর্ণভাবে ভুল করে ফেলে।

ব্লগ সাইটে পোস্ট দেওয়ার মাধ্যমে যদি আপনার পোস্ট ফিচার স্নিপেট আসে, তাহলে সেখান থেকে কিন্তু আপনি ভালো পরিমাণ একটা ভিজিটর পাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

কখন আপনার ব্লগ পোস্টটি ফিচার স্নিপেটে আসবে?

যখন আপনি আপনার ব্লগ সাইটে পোস্ট সঠিকভাবে দিতে পারবেন এবং এর এসইও ঠিক মতো করতে পারবেন। অর্থাৎ এক কথায়, পোস্ট যদি এসইও ফ্রেন্ডলি SEO friendly post হয় এবং তা আপনার কম্পিটিটর থেকে কিছুটা পজেটিবভাবে ভিন্নতা আনতে পারেন, তাহলেই আপনার পোস্টটি গুগলের ফিচার স্নিপেটে আসার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

উপরের কথাগুলোর একটাই সারমর্ম যে, আপনার পোস্টটি আপনি এসইও ফেন্ডলি করে দিন এবং তা গুগল রেজাল্টের প্রথম ফেজে নিয়ে আসুন। তো চলুন, এবার জানা যাক কীভাবে আপনি ব্লগ সাইটে এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট করবেন।

ব্লগ সাইট SEO করার নিয়ম

On page SEO এবং Off page SEO সম্পর্কে সম্পূর্ণ জানুন

ব্লগস্পট সাইটে পোস্ট করার ধাপ গুলো

  • New Post
  • Article Paste
  • Title
  • Sub title
  • Internal Link
  • Outbound Link
  • Bollet point
  • Bold
  • Metadiscription
  • Video link embad
  • Faq
  • Schema markup
  • Tag
  • Feature Image
  • Category/Labels
  • Permalink

গুগল ব্লগস্পট সাইটে এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট করার নিয়ম

  • প্রথমে আপনার জিমেইল দিয়ে আপনার ক্রোম ব্রাউজারে লগ-ইন করে ফেলুন।
  • এর যথানিয়ম অনুযায়ী আপনার ব্লগ সাইটে সাইন ইন করুন।
  • সাইন ইন করার পর ব্লগ সাইটের একটি ইন্টারফেইজ আসবে। সেখানে দেখুন, বাম সাইটের উপরের দিকে একটি অপশান আছে “+New Post” নামে। একটি নতুন পোস্টের জন্য এখানে ক্লিক করুন।
Read More  SEO Bangla Tutorial | এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ | Full SEO course
new post of blogspot site
  • এবার দেখুন ব্লগ পোস্ট করার জন্য সম্পূর্ণ একটি নতুন ফেইজ ওপেন হয়েছে।
  • যেহেতু পূর্বে থেকে প্লেন মাফিক পোস্ট লেখে রাখবেন এমএস ওয়ার্ড অথবা নোটে। তাই এবার সেখান থেকে সম্পূর্ণ পোস্টটি কপি বা কাট করে নিয়ে আসুন।
  • কপি বা কাট করার পর ব্লগ পোস্টের সেই ফেইজে এসে তা পেস্ট করুন।
  • এবার পোস্টের টাইটেল Post Title দিতে হবে। পোস্ট টাইটেলটি এমন ভাবে দিতে হবে যেন আই কেসিং eye catching post title হয়। অর্থাৎ আমাদের টাইটেল দেওয়ার কাজ শেষ।
  • টাইটেলের পর এবার নজর দিতে হবে পুরো আর্টিকেলে অর্থাৎ বডি সেকশানে। এখানে অনেকগুলো কাজ করতে হবে।
  • বডি অংশের প্রথমে যে জিনিসটি মনে রাখতে সেটা হলো প্রথম ডেসক্রিপসানটা। অর্থাৎ ইন্ট্রোডাকশনের অংশ। আমাদের মূল কী-ওয়ার্ডটা ইন্ট্রোডাকশনের প্রথম বাক্যে অথবা প্রথম ৩ লাইনের মধ্যেই রাখতে হবে। আর সেটা ন্যাচারেলি রাখতে হবে। জোর করে অথবা আনন্যাচারেলি যদি কী-ওয়ার্ড অপটিমাইজড করি, তাহলে ভিজিটর তা ইগনোর করবে।
  • পুরো আর্টিকেলে কয়েকবার ন্যাচারেলি মেইন কী-ওয়ার্ড টা অপটিমাইজড করতে হবে। এটাকে বলে কী-ওয়ার্ড ডেনসিটি।
কী ওয়ার্ড ডেনসিটি কী?               

একটা পোস্টের আর্টিকেলে কতবার মূল কী ওয়ার্ড টা ব্যবহার করা হয়েছে, তা বুঝানোকেই কীওয়ার্ড ডেনসিটি বলে।

কী-ওয়ার্ড ডেনসিটির সঠিক বা আদর্শ পরিমাণ কত?

কী-ওয়ার্ড ডেনসিটির আদর্শ পরিমাণ হলো ০.২%-০.৫% পর্যন্ত। তবে আর্টিকেল ভেদে ন্যাচারেলি আরো বেশি ব্যবহার করা যায়। কিন্তু মাত্রারিক্ত কী ওয়ার্ড আর্টিকেরে দিলে, গুগল তা ব্ল্যাক হ্যাট হিসেবে গ্রহণ করবে। তাই ব্লগস্পট পোস্টে অবশ্যই কী ওয়ার্ড ডেনসিটি ঠিক রাখতে হবে।

  • পোস্টের ইন্ট্রোডাকসান শেষে এবার হেডিংগুলোতে নজর দিতে হবে।
  • সাধারণত প্রতিটা পোস্টের টাইটেল থাকে H1 heading এ। আর একটা পোস্টে H1 heaing একাবারই ব্যবহার করতে হবে।
  • এবার আসি H2 heading এ। সাব-টাইটেল হিসেবে H2 heading কে ব্যবহার করতে হবে। আপনার পোস্টের লেংথ অনুযায়ী বা পোস্টের ধরণ অনুযায়ী Sub heading বা H2 heading দিতে পারেন। H2 heading এ নির্দিষ্ট কোনো সংখ্যা নেই। আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী H2 heading দিতে পারেন।
  • এভাবে H3, H4, H5, H6 heading গুলো অপটিমাইজড করতে হবে।
  • যদি আর্টিকেলের মধ্যে এমন কোনো লেখা বা বস্তু থাকে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু মূল কী-ওয়ার্ড রিলেটেড না, তাহলে ঐ লেখাটকে Bold বোল্ড করে দিবেন।
  • এবার আসি ইমেইজ সেকশানে। ইমেইজের ক্ষেত্রে প্রথমে আপনাকে ইমেইজ কে এসইও করতে হব। অর্থাৎ প্রোপার ভাবে ইমেইজ অপটিমাইজড করতে হবে।
  • টাইটেলের পরেই একটি  ইমেইজ ব্যবহার করবেন প্রথম ইন্ট্রোডাকসনের আগেই ইমেইজটি ব্যবহার করবেন।
  • টাইটেলের পরের ইমেইজটিই ফিচার ইমেইজ হিসেবে দিয়ে দিবেন। ফিচার ইমেইজটি আপনার হোম ফেইজের ফিজিটরদের আকর্ষণ বাড়াতে সহায়তা করবে।
  • পোস্টের মাঝখানে সাব-টাইটেল অনুযায়ী আরো ইমেইজ ব্যবহার করতে পারেন।
  • ইমেইজ যখন ব্যবহার করবেন, তখন অবশ্যই Alt টেক্সট ব্যবহার করবেন। এবং এটি প্রতিটি ইমেইজের ক্ষেত্রেই। Alt টেক্সটে আপনার মূল কীওয়ার্ড টি রাখবেন। এবং আর্টিকেলের ভিতরে ব্যবহৃত ইমেইজগুলোয় সাবহেডিং অনুযায়ী Alt text ইউজ করবেন।
  • এবার আপনার আর্টিকেলে এমন কিছু রাখেন, যাতে করে বুলেট পয়েন্ট বা নাম্বারিং দেওয়া যায়। ফিচার স্নিপেটে বুলেট পয়েন্ট এবং নাম্বারিং বেশ কাজে দেয়।
  • এবার চাইলে আপনি একটা ভিডিও ব্যবহার করতে পারেন। তবে ভিডিওটি অবশ্যই আপনার পোস্ট রিলেটেড হতে হবে। এই ক্ষেত্রে ইউটিউব থেকে ভিডি এমবেড করতে হবে।
  • ইন্টারনাল লিংক বা ইন্টার লিংক। পোস্টের জন্য অনেক অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপানকে অবশ্যই প্রতিটা পোস্টে ইন্টারনাল লিংক ব্যবহার করতে হবে। তবে ইন্টারনাল লিংকগুলো সাইলো স্ট্রাকচারে করতে হবে। ইন্টারনাল লিংকগুলো পোস্টের শুরুতে এবং মাঝখানে বেশি দিতে হবে।
  • প্রতিটা পোস্ট থেকে একটি আউটবাউন্ড লিংক দিতে হবে। এই ক্ষেত্রে আপনাকে মনে রাখতে হবে, কোনো ভাবেই আপনার কম্পিটিটরকে দেওয়া যাবে না। যেসব সাইট ঐ কী ওয়ার্ডের জন্য ১৫ নাম্বার ফেইজের উপরে আছে তাদের কে দিতে হবে। অথবা ঐ প্রোডাক্ট বা কীওয়ার্ড রিলেটেড কোম্পানিকে। এখানে মনে রাখতে হবে, আউটবাউন্ড লিংক কোনো ভাবেই পোস্টের প্রথমে দেওয়া যাবে না। পোস্টের একদম শেষে দিতে হবে। না হয় ট্রাফিক শুরুতেই অন্যের সাইটে চলে যাবে। যা আপনার রেংকে খারাপ প্রভাব পড়বে।
  • এখন আপনি যদি পারেন বা একটি কোডিং সম্পর্কে জ্ঞান থাকে তাহলে, অবশ্যই পোস্ট রিলেটেড স্কিমা ব্যবহার করবেন। অনেকগুলো সাইট আছে স্কিমা তৈরি করার এবং কী গুগলের নিজস্ব একটা সার্ভিস আছে স্কিমা নিয়ে।
  • পোস্টে অবশ্যই কিছু প্রশ্ন টাইপের কোশ্চেন রাখবেন। যেগুলো উত্তর প্রশ্নের নিচেই দিয়ে দিবেন। এটাকেই এফএকিউ FAQ বলে।
  • এবার আসি ক্যাটাগুরিতে বা লেভেল এ । পোস্টটি অবশ্যই রিলেটেড ক্যাটাগরিতে রাখতে হবে। এলোমেলো ক্যাটাগরিতে রাখা যাবে না।
  • Permalink – পার্মা লিংক হলো প্রতিটা পোস্টের নিজস্ব ইউআরএল URL. আপনি যখন পোস্ট দিবেন, তখন ঐ পোস্টের ইউআরএল এ অবশ্যই আপনার মূল কীওয়ার্ডটি রাখবেন। পার্মালিংকটি নিজে কাস্টমাইজড করে দিবেন।
  • সর্বশেষ ইন্ট্রোড্রাকসান দিয়ে ‍দিবেন কয়েক লাইনে। এবং এই পেরাতেও আপনার মূল কী ওয়ার্ড টি রাখবেন।
Read More  Bangla Search Engine | পিপীলিকা (Pipilika)

সম্পূর্ণ SEO শিখুন টিউটিরিয়াল পড়ে

সার্চ ইঞ্জিন কীভাবে কাজ করে?

উপরোক্ত আলোচনা অনুযায়ী একজন নিউবি খুব সহজেই গুগল ব্লগস্পট সাইটে এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট করতে পারে। তবে উল্লেখিত বিষয়গুলোতে অবশ্যই খুব বেশি সিরিয়াস হতে হবে। এভাবে যদি কেউ ব্লগ পোস্ট করে এবং তার কন্টেন্ট কোয়ালিটি যদি ভালো হয়, তাহলে অবশ্যই তার সাইটের পোস্টটি ফিচার স্নিপেটে দেখাবে   এবং গুগল সার্চ রেজাল্টের প্রথম ফেইজে আসবে।

ব্লগস্পট পোস্টে এসইও সম্পর্কে আরো জানতে দেখুন-

Leave a Comment